× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার
আলাপন

‘সবার এখন রাতারাতি তারকা হওয়ার খুব ক্ষুধা’

বিনোদন

ফয়সাল রাব্বিকীন | ৯ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার, ১০:৩০

জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ফাহমিদা নবী। নিজের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অনেক শ্রোতাপ্রিয় গান তিনি উপহার দিয়েছেন। চলচ্চিত্রের গানে যেমন তিনি সফল  ঠিক তেমনি অডিও গানেও। এর বাইরে দেশ বিদেশের স্টেজেও ফাহমিদা নবীর কদর রয়েছে বেশ। এদিকে এতটা দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়েও এতটুকু ক্লান্ত নন এ শিল্পী। নতুন গান ও স্টেজে নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছেন। সব মিলিয়ে কেমন আছেন? দিনকাল কেমন কাটছে? ফাহমিদা নবী উত্তরে বলেন, অনেক ভালো আছি। তবে মাঝে মধ্যে মন খারাপ হয়ে যায়।
কারণ প্রিয় মানুষেরা একে একে চলে যাচ্ছেন। সর্বশেষ আইয়ুব বাচ্চু ভাই চলে গেলেন। এত তাড়াতাড়ি তিনি চলে যাবেন কখনও কেউ কল্পনা করেনি। সবার যেতে হবে। এটা নিয়ম। এখন তার জন্য দোয়া ছাড়াতো কিছু করার নেই। আমরা সেটাই যেন সবাই করি। এখনকার ব্যস্ততা কি নিয়ে? ফাহমিদা নবী বলেন, ব্যস্ততাতো গান নিয়েই। নতুন গান রেকর্ডিং করেছি কিছু। এগুলো সামনে প্রকাশ পাবে। এরমধ্যে ভিডিওর কাজও করেছি একটি গানের। আর স্টেজ শো করছি। সব মিলিয়ে গানের মাঝেই চলে যাচ্ছে সময়। নতুন গান কবে প্রকাশ পাচ্ছে? ফাহমিদা নবী বলেন, এখনতো আসলে আগের মতো নিয়ম করে অ্যালবাম প্রকাশ হয় না। আগে সারা বছরই উৎসবের আমেজে অ্যালবাম প্রকাশ হতো। অনেক আগে থেকেই তার প্রস্তুতি থাকতো। সেরকম আমেজ কিংবা আনুষ্ঠানিকতা এখন আর নেই। সব ডিজিটাল হয়ে গেছে। প্রযুক্তির কারণে অনেক কিছুই বদলে গেছে। তাই যে গানগুলো তৈরি করে রেখেছি সেগুলো নির্দিষ্ট সময় পর পর হয়তো সিঙ্গেল আকারে প্রকাশ হবে। প্রযুক্তি এসে যে  অনেক কিছুই বদলে দিচ্ছে তা কিভাবে দেখছেন? ফাহমিদা নবী বলেন, আমি একটু ভিন্নভাবে দেখি বিষয়টি। প্রযুক্তি আমাদের হাতের মুঠোয়। তাই হয়তো ভাবি, সবাই আমরা সব পারি। যা ইচ্ছা হলো সেটাই প্রচার করে দিতে পারি। মেধাকে এত অবমাননা করছি! ঘুরপাক খাওয়াচ্ছি, অনেকটা অভিভাবকহীন বখে যাওয়া সন্তানের মতো। চাইলেই যা ইচ্ছা করতে পারি। কেউ কিছু বলার নেই। জ্ঞানকে কাজে লাগানোর মনোভাব থাকলে যা ইচ্ছা তা করার সাহস করতে পারতাম না। সেটাই মেধার সুব্যবহার বা শিক্ষা। প্রযুক্তি সমাজের যথাযথ কাজের জন্য। প্রযুক্তির অপব্যবহারের ফলাফল হলো, কোনটা যে নন্দিত করে, সম্মানিত করে, আর কোনটা যে নিন্দিত করে তারই জ্ঞান দিনে দিনে বোকার মতো কমে যাচ্ছে। চলতি সময়ে গানের অবস্থা কেমন মনে হচ্ছে আপনার কাছে? ফাহমিদা নবী বলেন, গানের এখন বেহাল। কারণ এখন সবাই গাইতে চাইছে। তবে সত্যিকারের শিল্পী হওয়া নয়, সবার এখন রাতারাতি তারকা হওয়ার খুব ক্ষুধা। এই বিষয়টি আমাদের নিচের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। গান হলো মনের খোরাক। ভালোবাসা থেকে গান করেছি আমরা। তারকাখ্যাতি পাওয়ার জন্য গান- এটা কল্পনাও করা যেতো না। কিন্তু এখন ঘটছে তাই। এর ভেতর আবার ভিডিও প্রকাশ, ইউটিউব ভিউ নিয়ে প্রতিযোগিতা- কত কিছুইতো হচ্ছে। যেটা হবার কথা ছিলো না। ভালো গান তৈরিতে মনোযোগ কম। মানহীন হলেও সেটার প্রচার জোড়েসোড়ে চলছে। যার ফলে শ্রোতারাও কনফিউজড হয়ে যাচ্ছেন। তবে এসব গান টিকে থাকবে না। টিকে থাকবে ভালো কথা-সুরের গান। তাই এদিকেই আমাদের মনোযোগ দেয়া উচিত।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর