× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

সরকারের বিষয়ে প্রশ্ন তুললেই দেশবিরোধী- শাবানা আজমি

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৮:০৮

ভারতের প্রথিতযশা অভিনেত্রী শাবানা আজমি। বর্তমানে তিনি লোকসভায় সংরক্ষিত আসনে প্রেসিডেন্ট কর্তৃক মনোনীত সদস্য। শনিবার তিনি মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, বর্তমান সময়ে কোনো ব্যক্তি যদি সরকারের বিষয়ে প্রশ্ন তোলেন, তাহলে তাকে দেশবিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। তিনি বলেন, একটি দেশে কারো ভুল ধরা কোনো অন্যায় নয়। কারণ, এটা অগ্রগতিকে সামনে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে কর্মকাণ্ড সংশোধন করতে সাহায্য করে। এটা দেশের স্বার্থের জন্যই মঙ্গলময়। তিনি আরো বলেন, যদি কেউই ভুলত্রুটি ধরিয়ে না দেয় তাহলে পরিস্থিতির কখনোই উন্নতি হবে না। তবে তিনি কোনো রাজনৈতিক দল বা সংগঠনের নাম উল্লেখ করেন নি।
কেউ কাউকে দেশবিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করবে এজন্য কারো ভয় পাওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন শাবানা আজমী। তিনি বলেন, কারো কাছ থেকে জাতীয়তাবাদের সনদ পাওয়ার প্রয়োজন নেই। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জি নিউজ।
শাবানা আজমি বলেন, ভারতীয়রা তার দেশের ঐতিহ্য নিয়ে গর্ব করেন। তারা ভারতে সবাইকে একসঙ্গে নিয়ে যে সংস্কৃতি তা রক্ষা করার জন্য লড়াই করে যাবেন। তিনি স্বীকার করেন, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগের শিকার নারীরা। কারণ, দাঙ্গার জন্য তাদের ঘরবাড়ি ধ্বংস করে দেয়া হয়। তাদের সন্তানরা ভয়াবহ দুর্ভোগের শিকার হয়। তার মতে, ভারত অত্যন্ত চমৎকার একটি দেশ। কেউ এ দেশে বিভক্তির কথা বললে তা মোটেও ভালো নয় দেশের জন্য। তিনি এ সময় ঐতিহ্যবাহী বাবরি মসজিদ ধ্বংসের প্রসঙ্গে কথা বলেন। শাবানা আজমি বলেন, যখন ওই মসজিদটি ধ্বংস করে দেয়া হয়, তখন ঘটনাটি প্রভু রামের জন্য অবশ্যই বেদনার ছিল। কারণ, রাম এমন একজন, যিনি সব সময় শান্তি ও সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করতেন।
উল্লেখ্য, ভারতীয় চলচ্চিত্র, টেলিভিশন ও থিয়েটারের অতি পরিচিত মুখ শাবানা আজমি। তিনি কবি কাইফি আজমি ও মঞ্চ
অভিনেত্রী শওকত আজমির কন্যা। তিনি ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইন্সটিটিউট অব ইন্ডিয়া অব পুনের একজন অ্যালামনা। ৫ বার জিতেছেন সেরা অভিনেত্রীর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। এ ছাড়া পেয়েছেন আন্তর্জাতিক অনেক সম্মান। ৫ বার জিতেছেন ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড। এ ছাড়া পুরস্কার পেয়েছেন বিভিন্ন পর্যায়ে। সামাজিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত তিনি। তিনি কবি ও স্ক্রিনরাইটার জাভেদ আখতারের স্ত্রী। জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিষয়ক তহবিল ইউএনপিএফএ-এর শুভেচ্ছা দূতও তিনি। তার কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ভারতের প্রেসিডেন্ট তাকে লোকসভার সদস্য হিসেবে মনোনীত করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর