× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার

নূর হোসেনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা চলবে-হাইকোর্ট

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১১ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:০৫

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুনের মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি নূর হোসেনকে দুর্নীতির মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে বিচারিক (নিম্ন) আদালতের দেয়া আদেশ বাতিল করে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে থাকা দুর্নীতির মামলাটি আগামী ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলটি যথাযথ ঘোষণা করে এই রায় দেন। এর ফলে, নূর হোসেনের বিরুদ্ধে দুদকের করা দুর্নীতির মামলাটি চলবে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের শুনানিতে ছিলেন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. শফিকুল ইসলাম।

পরে আমিন উদ্দিন মানিক সাংবাদিকদের বলেন, নূর হোসেনকে অব্যাহতি দিয়ে বিচারিক আদালতের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে দুদক হাইকোর্টে ফৌজদারি রিভিশন করে। তখন আদালত রুল জারি করেন। গতকাল হাইকোর্ট সেই রুল যথাযথ ঘোষণা করে রায় দেন।
এর ফলে, বিচারিক আদালতের অব্যাহতির আদেশ বাতিল হয়ে গেল। এখন তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলাটি চলতে আর কোনো বাধা রইল না। এ মামলা ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

নথি থেকে জানা যায়, ১৯৯৭ সালে নূর হোসেন সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থাকা কালে পরিষদের অনুকূলে প্রাপ্ত ভূমি উন্নয়ন করের এক শতাংশ অর্থ বরাদ্দের পাঁচ লাখ টাকা ক্ষমতার অপব্যবহার করে আত্মসাৎ করেন। ২০০২ সালের ২৮শে নভেম্বরে বিষয়টি তৎকালীন নারায়নগঞ্জ জেলা দুর্নীতি দমন ব্যুরোর তদন্তে প্রমাণিত হলে পরিদর্শক ঋত্বিক সাহা নারায়ণগঞ্জ সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্ত শেষ করে ২০১১ সালের ১৯শে জুলাই দুদকের সহকারী পরিচালক মোহা. আবুল হোসেন অভিযোগপত্র দাখিল করেন। কিন্তু মামলাটি দেরিতে হওয়ার কারণে নারায়ণগঞ্জের বিশেষ জজ আদালত ২০১৩ সালের ৩০শে জানুয়ারি আসামিকে অব্যাহতি দেন। তার অব্যাহতি আদেশের বিরুদ্ধে দুদক ২০১৫ সালের ২৩শে এপ্রিল হাইকোর্টে ফৌজদারি রিভিশন করেন। এই বিষয়ে ওই বছরের ২৮শে জুন রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর