× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার

‘সবারই মা মারা যায়’

ষোলো আনা

মিলন হাসান | ২ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ৯:৪৩

তেলবাজি, মোসাহেবি, চাটুকারিতা শব্দগুলোর সঙ্গে আম জনতা পরিচিত। সে কালে ছিল। এখন তো আছেই। যুগে যুগে শুধু ধরন পাল্টেছে। তেলবাজি ছাড়া সমাজ চলে না। রাষ্ট্র চলে না। যোগ্যতার কোনো বিচার হয় না। কে কত বেশি তেল দিতে পারেন তাই এখন যোগ্যতার মাপকাঠি।
দেশে দেশে শাসকেরা তেলবাজির বড় বেশি মূল্য দেন। সামনে যেতে হলে একমাত্র যোগ্যতা হচ্ছে তেলবাজি। ব্যবসা, বাণিজ্য, নেতৃত্ব, পোস্টিং, প্রমোশন এসবই তেলবাজির কাছে আটকে গেছে।

সেনাশাসক জেনারেল এরশাদের জমানা। বলাবলি আছে, এরশাদের মা মারা গেছেন। দলের লোক কাঁদছে, আত্মীয়স্বজনরা কাঁদছে? কাঁদছেন তার প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমেদ। কাঁদতে, কাঁদতে তিনি জ্ঞান হারাচ্ছেন দেখে এরশাদ নিজেই বললেন, জাফর তুই কাঁদিস না। সবারই মা মারা যায়। এটা এখনো ইতিহাস হয়ে আছে। প্রয়াত কাজী জাফর প্রধানমন্ত্রীর পর আর কি চেয়েছিলেন? এভাবে না কাঁদলেও পারতেন। উপস্থিত লোকজন লজ্জা পেলেও জাফর লজ্জা পাননি।

কাজী জাফর বাম রাজনীতি করতেন। তুখোড় বক্তা। তার বক্তৃতা অনেক শুনেছি, কভারও করেছি। অনেক পড়ালেখা করতেন বক্তৃতা শুনে মনে হতো। যোগ্যতার বিচারে এরশাদ থেকে তিনি কম ছিলেন না। এরশাদের ক্ষমতার উৎস ছিল বন্দুক। এটাই শুধু পার্থক্য। প্রাপ্তির নেশায় পেয়েছিল জাফরকে। শেষ পর্যন্ত এরশাদের সঙ্গে থাকতেও পারেননি। এরশাদের নেতৃত্ব চ্যালেঞ্জ করে নিজেই কাণ্ডারি হয়েছিলেন। সফল হননি।

টেলিভিশন খুললেই শুনতে পাবেন তেলবাজি কাকে বলে। খালি কী রাজনীতি? গণমাধ্যম কর্মীরাই বা কম কিসে? প্রয়াত এক গণমাধ্যম কর্মীর কথা তো মুখে মুখে। সামাজিক যোগাযোগ নেটওয়ার্কই একমাত্র ভরসা। এই তো স্বাস্থ্যমন্ত্রী কোথায় আছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমই সে খবর প্রথম দিয়েছে। ডেঙ্গুতে মানুষ মারা যাচ্ছে। সারা দেশ ডেঙ্গুর কালোছায়ায় রীতিমতো কাঁপছে। এর মধ্যে সুযোগ্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী বউ-বাচ্চা নিয়ে কুয়ালালামপুর চলে গেলেন। বার্তা পেয়ে সফরসূচি সংক্ষিপ্ত করে বুধবার দেশে ফিরেছেন। যাই হোক মোসাহেবি আছে, থাকবে। কৌশল হয়তো বদলাবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
জাফর আহমেদ
১ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:২৬

ধন্যবাদ আপনাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। বর্তমান সময়ের মন্ত্রী এমপিদের কর্মকাণ্ড দেখলে মনে হয় তারা কি যোগ্যতা বলে মন্ত্রী এমপি হয়েছেন। বর্তমানে এরা আগের চেয়ে অনেক বেশি। সেটা আবার জাতির বিবেক নামে ক্ষেত সাংবাদিকদের মাঝে মনে হয় দিন দিন বাড়ছে।

অন্যান্য খবর