× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার

সিলেটে বিয়ের প্রলোভনে তরুণী ধর্ষিত

বাংলারজমিন

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি | ২০ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৩১

বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক তরুণীকে ধর্ষণের দায়ে আবদুল করিম (২০) নামের এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত আবদুল করিম উপজেলার খাজাঞ্চি ইউনিয়নের রায়পুর গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের পুত্র। এর আগে রোববার ভোররাতে কাঠমিস্ত্রি মোহাম্মদ আলীর বসতঘর থেকে তাকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় তরুণীর ভাই বাদী হয়ে আবদুল করিমকে আসামি করে রোববার রাতে বিশ্বনাথ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। কাঠমিস্ত্রি মোহাম্মদ আলী বলেন, ছোটবোনকে বাড়িতে একা রেখে শনিবার সকালে কাজে চলে যান তিনি। পরে রোববার ভোররাতে কাজ থেকে বাড়ি ফিরে আপত্তিকর অবস্থায় আবদুল করিমকে তিনি আটক করেন। এ সময় তার বোনের চিৎকারে বাড়ির লোকজন জড়ো হন। ঘটনা জানাজানি হলে রামচন্দ্রপুর গ্রামের ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিনও সেখানে উপস্থিত হন। পরে বাড়ির লোকজন ও ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিনের সহযোগিতায় রোববার দুপুরে আবদুল করিমকে থানায় সোপর্দ করা হয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পেশায় ফ্রিজ মেকানিক আবদুল করিম আত্মীয়তার সুবাধে দীর্ঘদিন থেকে ওই যুবতীর বাড়িতে আসা যাওয়া করেন। এক পর্যায়ে মেয়েটির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কও গড়ে তুলেন। রোববার বাড়িতে একা পেয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন। এ সময় হঠাৎ কাজ থেকে তার বড়ভাই মোহাম্মদ আলী বাড়িতে এসে তাদের দু’জনকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে তাকে আটক করেন। আটকের পর বাড়ির লোকজনসহ ইউপি সদস্যের উপস্থিতিতে ধর্ষণের কথা স্বীকার করলেও পুলিশের কাছে ধর্ষণের বিষয়টি অস্বীকার করেন অভিযুক্ত আবদুল করিম। বিশ্বনাথ পুলিশ স্টেশনের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামীম মূসা জানান, এ ঘটনায় আটককৃত আসামিকে গতকাল দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর