× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার

ময়মনসিংহ সিটিকে আধুনিক নগরী গড়তে চান মেয়র টিটু

বাংলারজমিন

মতিউল আলম, ময়মনসিংহ থেকে | ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৭:২৩

নবগঠিত ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন ও নবনির্বাচিত প্রথম মেয়র ইকরামুল হক টিটু বলেছেন, আমি প্রাচীনতম জনপদ এই নগরীকে নিয়ে নানা স্বপ্ন দেখি। ময়মনসিংহকে পরিকল্পিত আধুনিক স্বপ্নের নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। আমি বিশ্বাস করি, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর যে আন্তরিকতা রয়েছে এবং নগরের নাগরিকরা ত্যাগ স্বীকার করে আন্তরিক সহযোগিতা করলে অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছা খুব কঠিন হবে না। নগর উন্নয়নে মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের কার্যক্রম শুরু করেছি। নগর পিতা বলেন, আমার ইচ্ছা বা আন্তরিকতার কোনো অভাব নেই। বিগত ৯ বছর বিলুপ্ত পৌরসভার দায়িত্ব পালনকালে যে উন্নয়ন হয়েছে। তিনি তার চেয়ে আরো বেশি উন্নয়ন করতে চান। কিন্তু তিনি বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন বর্ধিত ১২টি ওয়ার্ডকে। যেখানে ন্যূনতম নাগরিক সুবিধা নেই। এসব এলাকার রাস্তাঘাট ও ড্রেন নির্মাণ, সড়ক বাতি ও পানি সরবরাহ করে পরিকল্পিতভাবে নগর গড়ে তোলা জরুরি প্রয়োজন। তিনি মনে করেন ছোট থেকে বড় সব ধরনের সমস্যাকে সমান গুরুত্ব দিয়ে সমাধানের মাধ্যমে পরিপূর্ণ নগর তোলা সম্ভব। তিনি আরো বলেন, দেশের দ্বাদশ সিটি করপোরেশন ময়মনসিংহের আয়তন ২২ বর্গকিলোমিটার থেকে পাঁচটি ইউনিয়নের ৭০ কিলোমিটার বেড়ে বর্তমানে হয়েছে ৯১ দশমিক ৩১ বর্গকিলোমিটার। ২১টি ওয়ার্ড থেকে হয়েছে ৩৩টি। সিটির জনসংখ্যাও বেড়ে প্রায় আট লাখ দাঁড়িয়েছে। এছাড়া ঘনবসতিপূর্ণ প্রাচীন নগরীকে ঢেলে সাজাতে হলে নাগরিকদের অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয় বা করতে হবে। তবেই বাসযোগ্য পরিকল্পিত নগরী গড়ে তোলা সম্ভব হবে। তিনি বলেন, নগরপিতা হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। এমন দিন যায় ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৩ ঘণ্টাও ঘুমাতে পারি না। এতে আমার কষ্ট মনে হয় না। মানুষের সেবা দিতে পারলে আনন্দ ও তৃপ্তি পায়। আমি জানি, মানুষ আমাকে অনেক ভালোবাসে। আমি সেই ভালোবাসার প্রতিদান দিতে চাই। মানবজমিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন মেয়র টিটু।
বিগত দিনের উন্নয়ন টানা সাড়ে ৯ বছরে বিলুপ্ত ময়মনসিংহ পৌরসভার দায়িত্ব পালনকালে ১৬০ কিলোমিটার ছোট বড় ড্রেন, ২৫০ কিলোমিটার রাস্তা উন্নয়ন, ২৫ কিলোমিটার ফুটপাথ, ২০ কিলোমিটার আন্ডারগ্রাউন্ড ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে। মেছুয়াবাজার ২টি কিচেন মার্কেট নির্মাণ, ২টি পার্ক সংস্কার, মিনিচিড়িয়া খানা স্থাপন, অত্যধিক অডিটরিয়াম নির্মাণ, ২০টি আইল্যান্ডে সৌন্দর্য বর্ধন, মাসকান্দা বাসস্ট্যান্ট উন্নয়ন, ১টি কমিউনিটি সেন্টার, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য ৭টি ডে-কেয়ার সেন্টার নির্মাণ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য আধুনিক যানবাহন ও যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করা হয়েছে ২৩টি। এসব উন্নয়নে ফলে মানুষ অনেক খুশি। মেয়র টিটু বলেন, নোংরা শহর বলে হিসেবে পরিচিত বদনাম মুছে যাচ্ছে। এই অর্জনকে ধরে রাখতে হলে এবং নগরকে ভালোরাখার জন্য নাগরিকদেরও দায়িত্ব পালন করতে হবে এবং সহযোগিতা করতে হবে। ময়লা আর্বজনা ড্রেন বা ছত্রতত্র না ফেলে নির্দিষ্ট সময়ে, নির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে।
ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে সিটির সরু রাস্তাগুলো প্রশস্তকরণ, খালগুলো দখলমুক্ত করে খালের দু’পাশে হাঁটার পাকা রাস্তা করা হবে। বিনোদনের জন্য ২টি আধুনিক পার্ক, শম্ভুগঞ্জে একটি আধুনিক বাসস্ট্যান্ড নির্মাণ, শিকারিকান্দায় ট্রাকস্ট্যান্ড নির্মাণ, ফুটপাথ দখলমুক্ত করা, হকারদের পুনর্বাসন, যানজট নিরসনে, অপরাধ দমনে ও নগরীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় মনিটরিং করতে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে। বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। আগামী ৬ মাসের মধ্যে এ কাজ সম্পন্ন হতে পারে। এতে করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার আমূল পরিবর্তন আসবে। শিক্ষা প্রসারে একটি উচ্চ বিদ্যালয়, একটি মহাবিদ্যালয়, প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হবে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। মশা ও মাদক নিয়ন্ত্রণের ওপর বেশি জোর দেয়া হবে। বিগত ৯ বছরের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে গত ২৭শে মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারো ইকরামুল হক টিটুকে নতুন নগরীর দায়িত্ব দেন। নাগরিকরা মনে করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের আনাচে-কানাচে যে উন্নয়ন করছেন তার বাস্তবচিত্র ময়মনসিংহ সিটিতেও পরিলক্ষিত হবে। মেয়র ইকরামুল হক টিটু জানিয়েছেন, বিলুপ্ত পৌরসভার যে উন্নয়ন হয়েছে তারই ধারাবাহিকতায় এ সিটিকে একটি মডেল নগরী হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব। এ এলাকায় অবকাঠামোগত অবস্থান সৃষ্টি করে ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠা ও ক্ষুদ্র-কুটির শিল্পপল্লী তৈরিসহ একটি আধুনিক ক্রিকেট ও হকি স্টেডিয়াম এবং সুইমিংপুল নির্মাণেরও জোর দাবি উঠেছে। ইকরামুল হক টিটু বলেন, বিভিন্ন সমস্যা ইতিমধ্যে চিহ্নিত করেছি। উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় সবাইকে পাশে পাবেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা ময়মনসিংহকে বিভাগ করেছেন, সিটিতে উন্নীত করেছেন। আশা করি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দিকনির্দেশনায় শিগগিরই এ নগরী একটি মডেল নগরী হিসেবে গড়ে উঠবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর