× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার

রাজনগরে চা শ্রমিকদের ধর্মঘট

বাংলারজমিন

রাজনগর (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৭:১০

মৌলভীবাজারের রাজনগরে ইটা চা বাগানে দশম শ্রেণির ছাত্র আব্দুর রহিমের মৃত্যু নিয়ে ওই বাগান এবং উদনা ফাঁড়ি বাগানে চলছে ধর্মঘট। গত দুইদিন থেকে ধর্মঘট চললেও বিষয়টি নিষ্পত্তির তেমন কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। গতকাল উভয় বাগানের ২৫শ’রও বেশি শ্রমিক ধর্মঘট পালন করে। এদিকে শ্রমিকরা বলছে, গতকাল সন্ধ্যার মধ্যে বিষয়টির সমাধান না করলে তারা আরো কঠোর কর্মসূচি দেবেন। এ ছাড়াও শনিবার ১২টার মধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষয়টি নিষ্পত্তি করবেন বলে শ্রমকিদের জানালেও তিনি (ইউএনও) বাগানে না যাওয়ায় গতকালও শ্রমিকরা ধর্মঘট পালন করে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ১লা সেপ্টেম্বর রাতে উপজেলার মুন্সিবাজার ইউনিয়নের ইটা চা বাগানের আব্দুল আজিজের ছেলে আব্দুর রহিমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে রাজনগর থানা পুলিশ। একই বাগানের ৫নং সেকশনের মাসুদ মিয়ার মেয়ে ইয়াছমিন আক্তারের সঙ্গে আব্দুর রহিমের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এজন্য এটিকে পরিকল্পিত হত্যা বলে দাবি করে তার পরিবার।
ঘটনার পরপরই মাসুদ মিয়া ও তার ভাইয়েরা সবাই পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় ৩রা সেপ্টেম্বর বাগানের ১২শ’ শ্রমিক বিক্ষোভ ও ১ ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করে। শ্রমিকদের দাবি ছিল মাসুদ মিয়ার পরিবার যেহেতু বাগানের বাইরের লোক সেহেতু তাকে বাগান থেকে বের করে দিতে হবে। বাগান কর্তৃপক্ষ বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিলেও কোনো সমাধান হয়নি। দাবি আদায় না হওয়ায় গত ৭ই সেপ্টেম্বর বাগানের শ্রমিকরা আবারো ধর্মঘট করে। এ সময় বিষয়টি এক সাপ্তাহের মধ্যে সমাধান করা হবে বলে প্রশাসন, পুলিশ ও বাগান কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের আবারো আশ্বস্ত করে। কিন্তু ওই সময়েও তা সমাধান না হওয়ায় শনিবার সকাল থেকে বাগানের শ্রমিকেরা অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দেয়। গতকাল ইটা চা বাগান ও উদনা ফাঁড়ি চা বাগানের ২৫শ’রও বেশি শ্রমিক ধর্মঘট পালন করে। শ্রমিকদের দাবি বহিরাগতকে বাগান থেকে উচ্ছেদ না করা পর্যন্ত তারা ধর্মঘট চালিয়ে যাবে। এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৗসি আক্তার বিষয়টি সমাধানের জন্য সবাইকে নিয়ে বসবেন বলে শ্রমিকদের জানানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর