× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২২ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার

বুয়েট ভিসি, অনেক প্রশ্ন

অনলাইন

রোকনুজ্জামান পিয়াস | ৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:২৭

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র আরবার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের দেড় দিন পার হয়েছে। কয়েক দফা জানাজা শেষে লাশ দাফনও হয়ে গেছে। অথচ বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম এখনও পর্যন্ত ঘটনাস্থলে আসেননি। আবরারের দাফনেও অংশ নেননি। দেখা তো দূরের কথা, কথা বলেননি আবরারের অভিভাবক, স্বজন বা সহপাঠিদের সঙ্গে। তাকে ফোনেও পাওয়া যাচ্ছে না।

যদিও শুরুতে বলা হয়েছিলো তিনি অসুস্থ। তাই তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে যেতে পারেননি।
কিন্তু সময় গড়িয়েছে, আর হত্যার লোমহর্ষক সব কাহিনী বেরিয়ে এসেছে, পরিস্থিতি জটিল থেকে জটিলতর হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়, রাজধানীর গন্ডি পেরিয়ে আবরার রাষ্ট্র হয়ে গেছে। দলমত নির্বিশেষে ফুঁসে ওঠেছে সারাদশের ছাত্রসমাজ। দেশ ছাড়িয়ে সংবাদ শিরোনাম হয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে। সামাজিক মাধ্যমজুড়ে আবরার বন্দনা আর ভালোবাসায় শোকাভিভূত, ক্ষুব্ধ, প্রতিবাদ মুখর মানুষ। ঘৃণার বিষবাষ্প ছুঁড়ে দিয়েছে খুনীদের প্রতি। অথচ তখনও নিবর ভিসি সাইফুল ইসলাম।  



স্বয়ং ছাত্রলীগ খুনের ঘটনায় জড়িত নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে, বহিস্কার করেছে, শাস্তি চেয়েছে, কিন্তু সাড়া মেলেনি ভিসির। তখনও চুপ, নির্লিপ্ত তিনি। প্রয়োজন মনে করেননি ঘটনাস্থলে যাওয়ার, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলার, আবরারের অভিভাবক-স্বজনদের সান্তনা দেয়ার। ফোন করে খোঁজ-খবর নেয়ার সাধারণ সৌজন্যবোধটুকুও নেই তার। ধরেননি ফোনও।

এক মায়ের সন্তান আবরার এখন লক্ষ মায়ের। আবরারের পিতার চোখের পানি গড়িয়েছে লক্ষ পিতার চোখ হয়ে। আবরার এখন আর এক পরিবারের নেই। অসংখ্য পরিবার তার, সারাদেশের ছাত্রসমাজ তার সহপাঠি, ভাই, বন্ধু। অথচ যার অভিভাবকত্বে উচ্চশিক্ষার এই বিদদ্যাপীঠে পা রেখেছিলেন আবরার, সেই ভিসির টিকিটিও পায়নি ছাত্ররা।

প্রশ্ন ওঠেছে তাহলে তিনি কোথায় আছেন? আর কেনই বা তার এই নির্লিপ্ততা। শিক্ষার্থীরা বলছেন, একজন ভিসি সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অভিভাবক। শিক্ষার্থীরা বিপদে-আপদে তার কাছেই যাবেন। তিনিও ছুটে আসবেন তাদের দুঃসময়ে। সমাধান দিতে না পারেন, অন্তত: সান্তনার বাণী শুনাবেন, সহানুভূতি জানিয়ে ছাত্রদের পাশে থাকবেন, ব্যথিত হবেন। কিন্তু তিনি যেনো একেবারে অজ্ঞাত কোন স্থানে চলে গেছেন।

গতকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা ঘটনাস্থলে ভিসিকে আশা করছিলেন। তার মুখ থেকে বিচারের আশ্বাস শুনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় সেটি আর চাওয়া নেই, হয়ে গেছে পূর্ণাঙ্গ দাবি। ঘটনাস্থলে না আসার জবাবদিহিতা। কিন্তু এরপরও আসেননি ভিসি সাইফুল।   



এই অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক মিজানুর রহমান আন্দোলনকারীদের সঙ্গে দেখা করতে আসেন আজ সকাল সাড়ে ১১টার দিকে। আর এসেই তোপের মুখে পড়েন শিক্ষার্থীদের। প্রশ্নবানে জর্জরিত হন। ভিসিকে না পেয়ে শিক্ষার্থীরা সকল রাগ-ক্ষোভ উগরে দেন তার ওপর। শিক্ষার্থীরা জানতে চান, আপনি কোথায় ছিলেন? হলে পুলিশ আসলো কি করে? ইত্যাদি। এর সঠিক জবাব তিনি দিতে পারেননি। এরপরই ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তার পদত্যাগের আহ্বান জানান। শিক্ষার্থীদের জেরার মুখে ভিসি কোথায় আছেন তা জানেন না বলে জবাব দেন।

ভিসিকে ফোন দেন ছাত্রকল্যাণ পরিচালক। কয়েকবার ফোনে বিজি পান। এরপর তার (ভিসি) ফোন বন্ধ হয়ে যায়। শিক্ষার্থীরা ভুয়া ভুয়া বলে আওয়াজ তোলেন।

তবে মিজুনুর রহমান সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে ছাত্র রাজনীতি থাকার প্রয়োজন নেই। বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের আশ্বাসও দেন তিনি।

এদিকে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি। আন্দোলনকারীরা ভিসিকে স্বশরীরে হাজির হয়ে জবাবদিহি করার জন্য বিকাল ৫টা পর্যন্ত সময় বেধে দিয়েছেন।

অপরদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন বুয়েট ভিসি। এ কারণে তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে যাননি, তবে যাবেন। আজ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সমসাময়িক রাজনৈতিক ইস্যুতে ডাকা এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষকরা দাবি করেছেন, ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম সুস্থ্য রয়েছেন। এমনকি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় চলমান ক্যাম্পাস পরিস্থিতি নিয়ে তার বাসায় আলোচনাও হয়েছে। সেখানে শিক্ষকরা ক্যাম্পাসের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন। গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন ছাত্রকল্যাণ পরিচালক মিজানুর রহমান। বলেন, ভিসি স্যার সুস্থ্য, তবে তিনি আন্দোলন কিভাবে সামাল দেবেন সে ব্যাপারে কিছুটা দ্বিধাদ্বন্ধে রয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
biddut
১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৬:৫৬

pls stop any violence .recover it, by your good behavior.

Amir
৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ৬:১২

অন্যরাও মেধাবী কিন্তু মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিংএ ভর্তির জন্য একটা উচ্চ মেধাবী গ্রেড দেখা হয়, সেই অর্থে বুয়েটের ভিসিও একজন মেধাবী ইঞ্জিনিয়ার কিন্তু তার আচরণ সেই মেধা-মননের পরিচয় বহন করে না ;জল অনেক দূর না গড়াতেই ভিসি সাহেবের উচিত হবে ব্যার্থতা স্বীকার করে পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে আবরার হত্যা তদন্তে (প্রয়োজনে )সহযোগিতা করা! একগুঁয়েমি প্রকাশ করলে গোপালগঞ্জ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি র মত বেইজ্জতির সাথেপদত্যাগ করতে হতে পারে !

Anwar
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:৪৬

স্বাধীন দেশে - ছাত্র রাজনীতির বর্তমান চিত্র কিছুতেই মানায় না, তাই দেশ ও জাতির কল্যাণে শুধু বুয়েটে নয়, সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই বন্ধ হওয়া উচি।

Kamal
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৫:৫৩

VC don't know how the family suffer for Abrar. Such a brilliant student. If he lose one from his family that will be easy to understand. Like Abrar family and friends

Mustafizur Rahman
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:২৭

ভিসি দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে। একে অবিলম্বে বরখাস্ত করা হোক। অনতিবিলম্বে ছাত্রলীগের ভিতর থেকে চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, ইত্যাদি ছাত্রলীগ নামধারী দূর্বৃত্তদের রুখতে হবে। বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে হবে। নতুবা সাধারণ ছাত্ররা এভাবে মরতেই থাকবে।

সাগর
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:২৪

Superior responsibility এই কথা বলে যদি ভাডাটিয়ার অপরাধের জন্য বাডীওয়ালাকে ধরা হয়, এই কথা বলে অনেক বড় বড় নেতার জেল বা ফাঁসি হয় তবে হল বা বিশববিদ্যালয়ের এই জঘন্যতম হত্যাকাণ্ডের জন্য হল প্রভোষট বা ভিসির বিচার হবে না কেন ?? বাবা-মা তো ছেলেদের তাদের responsibility তে হলে থাকতে অনুমতি দেয় । superior responsibility এই ধারা এক্ষেএে প্রযোজ্য হবে না কেন??

জাফর আহমেদ
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৩:১৯

এরা কিসের শিক্ষক। এরা চাটুকার দালাল দালালি করে ভিসি হয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা এদের মান সম্মান বিবেক সব কিছুই দালালি করতে করতে চলে গেছে

ahammad
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:৪৮

আরে ভাই বুঝেন না কেন, ছাএলীগের পখ্খে থাকলে, খমতা প্রমোশন,টাকা সবই পাওয়া যাবে। ওনারতো বিবেক আছে, টাকার লোভ ছাড়া যায় কি ?? সুযোগ তো আর সব সময় আসে না ।

আকাশ
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:৪৬

VC কোনোভাবেই দায় এরাতে পারেন না। ওনার আশ্রয়ে এ নিসংশতা।

M.R.R.KHAN
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:০৯

উনি আতংকে আছেন। না জানি উনি সরকার প্রধানের বিরাগভাজন হয়ে চাকরি হারান।

abusayeedsiddiqui
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৫৭

আমার প্রায়ত শ্রদ্ধেয় শিক্ষক বলেছিলেন।ভদ্র লোক হওয়ার জন্য কয়েক পুরুষের রক্ত লাগে।কথাটির অর্থ আজ আরেক বার উপলব্ধি করলাম। বুয়েটের ভিসি নির্মম নির্যাতনে নিহত ছাত্রের লাশ টাও এক নজর দেখার প্রয়োজন বোধ করলেন না।আরেকবার প্রমান পেলাম সর্বচ্চো ডিগ্রী অর্জন করলেও মানুষের পরিচয় বহন করে না।শ্রদ্ধেয় শিক্ষা গুরুকে সালাম জানাই।স্বরণীয় বানীর যতার্থ প্রতিফলন বাস্তবে দেখলাম।

ahammad
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৪২

লীগ মার্কা ভিসি তাই সান্তনা দিতে আসলে যদি ছাএলীগের বিরুদ্বে কোন কথা বলতে হয়, তাহলে সোনার ছেলেদের মনে কষ্ট হবে। তাই আসতেছেন না।

abusayeedsiddiqui
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৩৯

এখন ভিসি হলেই মানবিক গুনাবলী থাকতে হবে কিতাবে কোথাও লেখা আছে? লেখা পড়া করলে ভদ্রলোক লোক হওয়া যায় না বুয়েটের ভিসি তার নিকৃষ্ট উদাহরণ।

Mahmud
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৩৭

ক্ষমতার পানি আর ভাই আবরারের রক্ত কোনটা বেশি মূল্যবান ? সরকারের কোনো মন্ত্রী বা নেতা আর দাম্ভিকের সহিত কথা বলবেন না | চুরি করে ,ভিক্ষার থালা পেতে ক্ষমতায় আছেন থাকেন কিন্তু মনে রাখবেন চোরকে আর ভিক্ষুক কে সবাই সম্মান করেনা কটু কথাও বলে এবং তারা সেগুলো মেনে নেয় |

Raju
৮ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:৩৫

ক্ষমতা এদের কে পশুতে পরিনত করেছে।

অন্যান্য খবর