× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার

স্বদেশি পেসারদের আচরণে হতাশ শোয়েব

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ৯:২৮

ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্রুততম বোলার শোয়েব আখতার। অবসর নিয়েছেন অনেক আগে। এখন বিভিন্ন সময় সুযোগ পেলে পেসারদের পরামর্শ দিয়ে থাকেন তিনি। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতেরও অনেক বোলার তার শরণাপন্ন হন। কিন্তু শোয়েব আখতারের কাছে স্বদেশি পেসাররা কোনো পরামর্শ বা সাহায্য চান না। নিজ দেশের পেসারদের এমন আচরণে হতাশা প্রকাশ করেছেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি এই পেসার।
ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পর ভারতের পেসার মোহাম্মদ শামি শোয়েব আখতারের কাছে ছুটে গিয়েছিলেন। পরামর্শ চেয়েছিলেন নিজের বোলিংকে কীভাবে আরো উন্নত করবেন সে ব্যাপারে জানতে। শোয়েব তাকে ফিরিয়ে দেননি।
কোচের মতোই দীক্ষা দিয়েছিলেন। সেই শামি গত সপ্তাহে বিশাখাপত্তম টেস্টে বল হাতে দুর্দান্ত পারফর্ম করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়ে ভারতকে বড় জয় এনে দেনম। শামির এমন পারফরম্যান্সের পর মুখ খুলেছেন ৪৪ বছর বয়সী শোয়েব। জানিয়েছেন নিজ দেশের বোলারদের পশ্চাদপদতার কথা। শোয়েব বলেন, ‘বিশ্বকাপ শেষে শামি আমার কাছে আসে। সে বলছিল যে তেমন ভালো করতে পারছে না। আমি তাকে আশা না হারিয়ে ফিটনেসের দিকে নজর রাখতে বলেছিলাম। তাকে আমি ভালো ফাস্ট বোলার হিসেবে দেখতে চাই, সেটাও তাকে বলেছি। তার রিভার্স সুইং বেশ ভালো, এটাও তাকে বলেছি। এখন আপনাররা দেখেছেন বিশাখাপত্তম টেস্টে শামি কী করেছে। সে মরা পিচে উইকেট নিয়েছে। তাকে নিয়ে আমি খুব খুশি। দুঃখজনকভাবে আমাদের পাকিস্তানের ফাস্ট বোলাররা আমাকে জিজ্ঞেস করে না যে কীভাবে তারা আরও ভালো করতে পারে। শামির মতো ভারতের বোলাররা আমার কাছে সাহায্য চায়, কিন্তু পাকিস্তানের কেউ চায় না। এটাই দুঃখের বিষয়।’
পাকিস্তানের হয়ে ৪৬ টেস্ট, ১৬৩ ওয়ানডে এবং ১৫ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেন ডানহাতি পেসার শোয়েব। তিন ফরম্যাট মিলিয়ে প্রায় সাড়ে চারশ উইকেট নেন তিনি। নিজ দেশের কয়েকজন উদীয়মান পেসারকে নিয়ে ভালো কিছুর আশা করছেন শোয়েব। রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস বলেন, ‘নাসিম শাহ, মুসা খান, হারিস রউফদের মতো তরুণ মুখগুলো বিশ্বের সবচেয়ে গতিময় পেসার হতে পারবে। আমি আশা করি তারা আমার কাছে আসবে পরামর্শ নিতে। আমি তাদের নিজেদের মতো করে গতিতারকা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। যাতে করে তারা বিশ্বমঞ্চে নিজেদের নাম উজ্জ্বল করতে পারে।’
পাকিস্তান সুপার লীগ পিএসএলে ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের হয়ে ৭ ম্যাচে শিকার করেছিলেন ৮ উইকেট মোহাম্মদ মুসা। বর্তমানে নর্দার্ন পাকিস্তানের হয়ে কায়েদে আজম ট্রফি খেলছেন তিনি। লাহোরের হয়ে খেলা হারিসের ১০ ম্যাচে ছিলো ১১টি উইকেট। দুজনেই প্রায় ১৫০ কিমি. প্রতি ঘণ্টায় বোলিং করতে পারেন। ১৬ বছর বয়সী রউফ পাকিস্তানের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের খেলে আলোচনায় আসেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর