× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

লাল বল নিয়ে মিরাজের গভীর ভাবনা

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:০৩

২০১৯-এ মাত্র দু’টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ দল। সবশেষটি আফগানিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রামে। সেই ম্যাচে স্পিন সহায়ক উইকেট বানিয়ে একাদশে সাত স্পিনার নিয়েও হার দেখে বাংলাদেশ। দলের স্পিন ভরসার একজন তরুণ মেহেদী হাসান মিরাজ দুই ইনিংসে নেন মাত্র ৩ উইকেট। সেখানে আফগান স্পিনাররা দেখিয়েছেন ভেলকি। তাদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি বাংলাদেশের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানরা। এর আগে নিউজিল্যান্ডে মিরাজের শিকার মাত্র ২ উইকেট। অথচ আগের বছরটি তার কেটেছে দারুণ।
মাত্র ৮ ম্যাচের ১৪ ইনিংসেই নেন ৪১ উইকেট। এবছর নিজেকে আন্তর্জাতিক ম্যাচে প্রমাণ করতে না পারায় চিন্তিত মিরাজ। যদিও শ্রীলঙ্কায় ‘এ’ দলের সফরে দুই ম্যাচে নিয়েছেন ১২ উইকেট। তারপরও লাল বলে নিজেকে আবারো প্রমাণ করতে গভীর ভাবনায় মিরাজ। বিশেষ করে আসন্ন টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চ্যালেঞ্জ তার সামনে। ভারত সফরেই শুরু হচ্ছে টাইগারদের চ্যাম্পিয়ানশিপের মিশন। গতকাল সংবাদমাধ্যমকে মিরাজ বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় লাল বলে ফোকাসটা বেশি দিতে হবে। কারণ সামনে আমাদের অনেক টেস্ট ম্যাচ আছে। আর আমিও গত কয়েকটি টেস্টে ভালো বোলিং করতে পারছিলাম না, এলোমেলো হচ্ছিল।’
জাতীয় ক্রিকেট লীগে যদিও প্রথম রাউন্ড থেকে খেলা হচ্ছে না মিরাজের। তিনি খেলবেন দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে। শ্রীলঙ্কা থেকে মঙ্গলবার রাতেই ফিরেছেন দেশে। এরপর সকালেই এসেছিলেন মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। যদিও অনুশীলন করেননি। কারণ তার দল খুলনার খেলা নিজ বিভাগের শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে। শ্রীলঙ্কা সফর থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাস কাজে লাগাতে চান তিনি। শ্রীলঙ্কায় দ্বিতীয় আনঅফিসিয়াল ম্যাচে ইনিংসে সাত উইকেট নেন মিরাজ। প্রথম ম্যাচেও পান ইনিংসে পাঁচ উইকেট। মিরাজ বলেন, ‘আমার জন্য ভালো হয়েছে। আমি অনেকক্ষণ বোলিং করার সময় পেয়েছি। অনেকদিন পর দেশের বাইরে এভাবে বোলিং করার সুযোগ পেয়েছি। বিশ্বকাপের আগে এবং পরে সাদা বলেই খেলা বেশি হয়েছে। আমার জন্য মনে হয় এটা বড় সুযোগ ছিল। দুটো চারদিনের ম্যাচ খেলেছি। শ্রীলঙ্কায় আমার খুব ভালো হয়েছে। যেখানে যেভাবে বোলিং করা উচিত ছিল, এই দুই ম্যাচে সেভাবে বোলিং করতে পেরেছি।’ এখন পর্যন্ত দেশের হয়ে মিরাজের শিকার ২০ ম্যাচে ৮৯ উইকেট। এখন তার সামনে লক্ষ্য দেশের হয়ে ১০০ উইকেট নেয়া। বাংলাদেশের মাত্র তিনজন ১০০ উইকেটের মালিক। তারা হলেন সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ রফিক ও তাইজুল ইসলাম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর