× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার
জেন্সের রিপোর্ট

বাংলাদেশের কোস্টাল সার্ভিলেন্স সিস্টেম নেই

দেশ বিদেশ

মানবজমিন ডেস্ক | ১১ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ৯:০০

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বৃটিশ প্রতিরক্ষা সাময়িকী জেন্স ডিফেন্স উইকলি চলতি সংখ্যায় (৯ই অক্টোবর) বলেছে, বাংলাদেশ ও ভারত  ভারতীয় প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম ক্রয় ত্বরান্বিত করাসহ দু’দেশের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা বাড়াতে একমত হয়েছে।
জেন্স প্রতিরক্ষা সংবাদদাতা বেন ভোগেল লিখেছেন, গত ৫ই অক্টোবর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একটি যৌথ বিবৃতিতে ‘ভারত কর্তৃক বাংলাদেশকে দেয়া ৫শ’ মিলিয়ন ডলারের প্রতিরক্ষা ক্রেডিট লাইন ব্যবহারের লক্ষ্যে কাজ শুরু করতে সংকল্প ব্যক্ত করা হয়েছে। অবশ্য ২০১২ সালের এপ্রিলেই এর বাস্তবায়ন ব্যবস্থা চূড়ান্ত করা হয়েছে’।
জেন্স রিপোর্টে বলেছে, দুই দেশ ঘনিষ্ঠ সমুদ্র সুরক্ষা সম্পর্ক বিকাশের চেষ্টায় শেখ হাসিনা ও  মোদি বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় একটি নজরদারি রাডার সিস্টেম স্থাপনে সমঝোতা স্মারকেও স্বাক্ষর করেছেন। তবে কবে নাগাদ এসব রাডার মোতায়েন করা হবে বা রাডারগুলোর ধরন কি হবে, সেই বিষয়ে সরকারি উৎস থেকে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে বাংলাদেশের কোনো কোস্টাল সার্ভিলেন্স সিস্টেম নেই।
উল্লেখ্য, স্টকহোমের ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ২০১৭ সালের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ২০১২ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে পৃথিবীতে মোট অস্ত্র আমদানির মধ্যে ভারত একাই কিনেছে ১৩ শতাংশ।
 ২০১৭ সালে ভারতের সঙ্গে ৫০ কোটি ডলারের ঋণ চুক্তি করে বাংলাদেশ। কিন্তু ওই অর্থ দিয়ে এখনো কোনো সামরিক সরঞ্জাম  ক্রয় করা হয়নি। ভারতের দেয়া এই ঋণ এক শতাংশ সুদে ২০ বছরে শোধ করতে হবে।
গত আগস্টে এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল  মোমেন ডয়েচে ভেলেকে বলেছিলেন, ‘সামরিক সরঞ্জাম কেনার জন্য তারা পাঁচশ’ মিলিয়ন ডলার (৫০ কোটি ডলার) লাইন অব  ক্রেডিট দিয়েছে। তারা বলছে, আপনারা এখন আমাদের সামরিক সরঞ্জাম কেনেন। ভারতে এখন অনেক ডিফেন্স কোম্পানি গড়ে উঠেছে।’।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর