× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার

কূটনীতিকরা শিষ্টাচার লঙ্ঘন করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অনলাইন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৫:০১

আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সরকার তাৎক্ষণিকভাবে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেছেন, এ বিষয়ে কূটনীতিকদের বিবৃতি দেয়া ‘অহেতুক’। তিনি বলেন, এটা বন্ধ হওয়া উচিত। আমি মনে করি তারা (কূটনীতিকরা) শিষ্টাচার লঙ্ঘন করেছেন। মঙ্গলবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। এসময় তিনি সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ব্রুকলিনে হওয়া গোলাগুলির ঘটনায় চার জন নিহতের ঘটনা তুলে ধরেন। বলেন, ওই ঘটনায় এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি মার্কিন সরকার।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শের-এ-বাংলা হলে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতারা। এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্রসহ একাধিক আন্তর্জাতিক শক্তি। বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী মিয়া সেপ্পোও উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দেন।
রোববার সকালে সেপ্পোকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে বিবৃতির ব্যাপারে অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়। এর আগে গত বৃহস্পতিবার তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত বিদেশী কূটনীতিকদের এসব মন্তব্য অযৌক্তিক।

এদিকে, উপকূলীয় অঞ্চলে নজরদারি ব্যবস্থা বসানোর ব্যাপারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মঙ্গলবার বলেন, এ বিষয়ে কারো মাথাব্যাথা থাকা উচিৎ নয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো জানান যে, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে মিয়ানমারের কাছে নতুন প্রায় ৫০ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থীর তালিকা হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, এর আগে, ২৯শে জুলাই রাখাইনে প্রত্যাবাসনের জন্য যাচাই-বাছাই করতে মিয়ানমারকে ২৫ হাজার রোহিঙ্গার একটি তালিকা দিয়েছিল বাংলাদেশ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Truth Teller
১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৩৭

And, you, your government, and your party have lied and violated the human rights!

jamal
১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:১৩

বাংলা দেশে কেহ কথা বলতে পারবে না।বলেল খুন,গুম।

Nurul alam
১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৬:৩০

সমাজ যাদেরকে ভদ্রবলে মনে করে তারা কী আসলে তাই ? না, একদম না । আসলে এ দেশ নষ্ট আর লোভী মানুষে ভরে গেছে । লোভ তাদের এত নীচে নামিয়েছে যে বিবেক নামের বোধটিও তাদের হতে বিদায় নিয়েছে । এদেশে বর্তমান শাসকদের আমলে যা ঘটে চলেছে তার বর্ণনা অনেক বড় । পেশাগত কারণে এদেশে অনেক সভ্য দেশের সভ্য মানুষ বসবাস করছেন । দেশে অহরহ যে বিভৎস এবং নিষ্ঠুর ঘটনাগুলো রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ঘটছে তার সমালোচনা না করেই পারা যায়না । বর্বতার সীমা ছাড়িয়ে গেছে বর্তমান শাসকগোষ্ঠী। কুটনীতিকদের অসংখ্য ধন্যবাদ ।

ahammad
১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৫:২১

জনাব বাংলাদেশে যত বিচার বহ্যিবুত হত্যা কন্ড হয়, প্রশাসন বা খমতাশীন দলের কারনে, আই ওয়াশ ছাড়া এর কোন বিচার হয় না। তাই হয়ত মানবীয় দৃষ্টকোন থেকেই ওনারা প্রতিক্রিয়া জানানো মানবতারই আংশ। এতে এত গায়ে জ্বালা হওয়ার কারন কি ?? খমতার মোহে অন্দ হয়ে যাওয়াটা মানবের কাজ নয় । আজ আবরার আপনার ছেলে হলে আপনার প্রতিক্রিয়া কি হতো ????

রাহমান
১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:৪৯

আর কত দালালি করব ইন্ডিয়ার ৯ আর ৬ কি এক জিনিস? কোথায় গুলি করে মানুষ মারা আর একটি সন্ত্রাসী দল একজন মানুষ কে তিলেতিলে পিটিয়ে মারা কি এক কথা। গুলি করে ত কত মানুষ পুলিশ নামক আওয়ামী প্রশাসন ডেলি মারছে তা নিয়ে কি কথা বলে

অন্যান্য খবর