× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৪ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার

মোয়াজ্জেমের জামিনের ব্যাপারে আদেশ ৩রা নভেম্বর

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:০২

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের জামিন আবেদনের শুনানি শেষ হয়েছে। এ বিষয়ে হাইকোর্ট আগামী ৩রা নভেম্বর আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন। গতকাল বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আইনজীবীরা বলেন, ৩রা নভেম্বর নির্ধারিত হবে সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম জামিন পাবেন কি না। জামিন আবেদনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদার ও আইনজীবী রানা কাওসার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সরওয়ার হোসেন বাপ্পী ও সহকারী অ্যাটর্নী জেনারেল শাহানা পারভীন। মূল মামলার বাদী পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী সাংবাদিকদের বলেন, ইতোমধ্যে এই মামলায় ৮জন সাক্ষ্য দিয়েছেন।
তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্যের জন্য ৩০শে অক্টোবর দিন ধার্য রয়েছে। এ অবস্থায় জামিন আবেদনের শুনানি শেষে পরবর্তী আদেশের জন্য ৩রা নভেম্বর দিন ধার্য করেছে আদালত। একই কথা বলেন মোয়াজ্জেমের আইনজীবী রানা কাউসার। তিনি বলেন, ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের জামিন চেয়ে করা আপিলের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। আদালত আগামী ৩ নভেম্বর অদেশের জন্য রেখেছেন। ওইদিন জানা যাবে তিনি জামিন পাবেন কি না।

গত ১৫ই এপ্রিল সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন সাইবার ট্রাইব্যুনালে সাবেক ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এরপর আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ২৬, ২৯ ও ৩১ ধারায় করা অভিযোগটি পিটিশন মামলা হিসেবে গ্রহণ করেন। গত ১৬ই জুন গোপনে হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করেন ওসি মোয়াজ্জেম এবং ১৭ই জুন আবেদনটি শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন আদালত। ওই দিন শুনানির জন্য আসলে সুপ্রিম কোর্ট এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে শাহবাগ থানা পুলিশ। এরপর পুলিশ তাকে সাইবার ট্রাইব্যুনালে হাজির করলে আদালত তার জমিন আবেদন খারিজ করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এরপর থেকে মোয়াজ্জেম হোসেন কারাগারে রয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর