× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার

পাবিপ্রবি’তে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ডিনকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, পাবনা থেকে | ২১ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ৮:২৩

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগককে ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং (ট্রিপল-ই) বিভাগের রূপান্তরের অপচেষ্টার প্রতিবাদে দ্বিতীয়দিনের মতো আন্দোলন করেছে ট্রিপল-ই বিভাগের শিক্ষার্থীরা। রোববার দুপুরে চোখে কালো কাপড় বেঁধে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ট্রিপল-ই বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা ইটিই বিভাগকে ট্রিপল-ই বিভাগে না নিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। পরে প্রকৌশল অনুষদের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় চতুর্থ বর্ষের দেলোয়ার হোসেন, আলামিন খান, তৃতীয় বর্ষের জান্নাতুল মাওয়া মীম, আহমেদ মুসা সহ অন্যান্য শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীরা মিথ্যাচার করে ট্রিপল-ই বিভাগ পেতে চায়। তারা বিসিএস পরীক্ষায় কোড না থাকা সহ যেসব অভিযোগ বা দাবি তুলছেন তা অযৌক্তিক। একটি কুচক্রী মহল নিজেদের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে ইটিই বিভাগকে ট্রিপল-ইতে রূপান্তরের অপচেষ্টা করছেন। যা কোনোভাবেই মানবেন না ট্রিপল-ই বিভাগের শিক্ষার্থীরা।
এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ট্রিপল-ই বিভাগের শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় প্রকৌশল অনুষদের ডিন ড.  শেখ রাসেল আল আহম্মেদকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন শিক্ষার্থীরা। সেইসঙ্গে তাদের দাবি মানা না পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তারা। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে প্রকৌশল অনুষদের ডিন ড. শেখ রাসেল আল আহম্মেদ জানান, এখানে শিক্ষকদের কোনো স্বার্থ নেই। ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীদের যে দাবি, সেটা নিয়ে তাদের সঙ্গে শুধু কথা বলেছে শিক্ষকবৃন্দ। কিন্তু ট্রিপল-ই বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিষয়টিকে ভুল বুঝে শিক্ষকদের নামে যে ভাষায় স্লোগান দিচ্ছে তা কষ্টদায়ক। শিক্ষার্থীদের এমন আচরণেরও নিন্দা জানান তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর