× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের তালিকায় ভারতীয় নাগরিক কালামের নাম !

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৩১

গত ৫ই নভেম্বর তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে ঘোষণা করা হয়েছে দুই বছরের (২০১৭-১৮) সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্তদের তালিকা। যেখানে পরিচালক, শিল্পীসহ চলচ্চিত্রের সকল শাখার কলাকুশলীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এরমধ্যে ২০১৭ সালের ‘ঢাকা অ্যাটাক’ চলচ্চিত্রের জন্য ‘সেরা সম্পাদক’ হিসেবে মো. কালামের নাম ঘোষণা করা হয়, যিনি একজন ভারতীয় নাগরিক। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে পুরস্কারের জন্য চলচ্চিত্র আহ্বান করে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড যে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল সেখানে বলা হয়েছিল,কেবল বাংলাদেশি নাগরিকরা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবেন। তাহলে চলচ্চিত্র পুরস্কারের তালিকায় কালামের নাম কীভাবে এলো- সে প্রশ্নের জবাবে জুরি বোর্ডের সদস্য ও চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, কালাম যে একজন বিদেশি সেটা আমাদের জানাই ছিল না। আর এই সিনেমার শিল্পী-কলাকুশলীদের তালিকায় ১৯ নম্বরে কালামের যে ঠিকানা দেওয়া আছে ঢাকার পল্লবীর।


আমরা কোনো বিদেশীকে তো এই পুরস্কার দিতে পারি না। ফরমে তা উল্লেখও আছে। প্রযোজক এ সিনেমার কলা-কুশলীর যে তালিকা ও ঠিকানা দিয়েছেন তাতে কালামের নাম, বাংলাদেশের ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করা হয়েছে।
সেহেতু আমরা ধরে নিয়েছি সে বাংলাদেশের নাগরিক। কিন্তু বাস্তবিক পক্ষে সে বাংলাদেশের নাগরিক না। ভারতীয় নাগরিক হিসেবে কেউ এই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাবে না। প্রয়োজনবোধে আলোচনা করে এই পুরস্কার বাংলাদেশের নামের তালিকায় প্রতিযোগি হিসেবে (দ্বিতীয়  নাম) যে সম্পাদকের থাকবে তাকে দেওয়া হতে পারে। আলোচনা করে মন্ত্রণালয় এই সিদ্ধান্ত নিবেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ চলচ্চিত্রের প্রযোজক সানী সানোয়ার জানান, ভুলবশত এটি হয়ে গেছে। আমি যখন কাগজে সাইন করেছিলাম তখন সবকিছু চেক করিনি। যে প্রস্তুত করেছে কাগজটি সে এই ঠিকানা কেনো ব্যবহার করলো তা বুঝছি না। আমার কাছে যখন কাগজটি এসেছে তখন শুধু আমি সাইন করে দিয়েছি। কিন্তু গতকাল যখন ঘোষণার খবর জানলাম, তখন আমরাও ভেবেছি যে কালাম তো ভারতীয় নাগরিক। সে কিভাবে পাবে এই পুরস্কার। ভুল যেহেতু হয়ে গেছে তাই তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে যে কোনো পরবর্তী সিদ্ধান্ত আমরা মেনে নিতে প্রস্তুত আছি। উল্লেখ্য, মুশফিকুর রহমান গুলজার একটি আবেদনপত্র সরবরাহ করেছেন যেখানে স্বাক্ষরসহ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রতিযোগিতা ২০১৭-এর জন্য ‘ঢাকা অ্যাটাক’ চলচ্চিত্রের শিল্পী, কুশীলবদের বিবরণে ১৯ নম্বরে সম্পাদক হিসেবে মো. কালামের ঠিকানা ফ্ল্যাট-সি/৫, সেরমানোর, ১২/৬ পল্লবী, ঢাকা, মোবাইল: ০১৭৭৯৮-৪৪৭৭৯৯ উল্লেখ করা হয়েছে। তবে এই নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। কলকাতার বাসিন্দা কালাম ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছাড়াও ‘পোড়ামন ২’, ‘দহন’সহ বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র সম্পাদনা করেছেন। তার সম্পাদিত কলকাতার চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে, ‘বস’, ‘খোকা ৪২০’, ‘খোকাবাবু’, ‘বিন্দাস’, ‘পান্থার’, ‘কিডন্যাপ’, ‘শেষ থেকে শুরু’ প্রভৃতি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর