× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২২ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার

চান্দিনায় মাছ চাষে ভাঙছে সড়ক

বাংলারজমিন

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি | ৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৭:৩১

কুমিল্লার চান্দিনায় মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের পুকুরে মাছ চাষ করার কারণে ভেঙে যাচ্ছে জোবেদা মমতাজ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াতের সড়কটি। সড়কটি ভেঙে যাওয়ার কারণে ফাটল দেখা দিয়েছে স্কুলের সীমানা প্রাচীরে। প্রতিবছর স্কুল কর্তৃপক্ষ লাখ টাকা খরচ করে বাঁশের খুঁটি বসিয়ে দূর থেকে মাটি কিনে এনে সড়কটি মেরামত করতে হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গত রোববার সরজমিনে স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবু জাফর মজুমদার জানান, আমাদের স্কুলের পার্শ্বে মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের এই পুকুরটিতে মাছ চাষ করার কারণে প্রতি বছর আমাদের স্কুলের সড়কটি ভেঙে পুকুরে পড়ে যায়। যার কারণে স্কুলের সীমানা প্রাচীরেও ফাটল দেখা দিয়েছে। এতে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াতে খুব সমস্যা হয়। তাই প্রতিবছর স্কুল ফান্ডের হাজার হাজার টাকা খরচ করে বাঁশ এবং মাটি কিনে সড়কটি মেরামত করতে হয়। গত বছর ১ লাখ টাকা খরচ করে সড়কটি মেরামত করেছি, আবারো ভেঙে যাচ্ছে।
যদি রাস্তার সঙ্গে পুকুরের পাড় থাকতো তাহলে রাস্তার কোনো ক্ষতি সাধন হতো না।
মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিমাই চন্দ্র দাস বলেন, এই রাস্তাটি মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের জমির ওপর দিয়ে। রেদোয়ান সাহেব যেহেতু এখানে একটি স্কুল করেছে, স্কুলের সুবিধার্থে আমরা রাস্তা দিয়েছি। রাস্তার সঙ্গে পুকুরের পাড় থাকতে হবে এমন কোনো সিদ্ধান্ত ম্যানেজিং কমিটি আমাকে দেয় নাই। এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি মেম্বার জাহিদ হাসান জানান, স্কুলের এই সড়কটি ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করতে রিটার্নিং ওয়াল করার জন্য সরকারিভাবে তিন লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। কিন্তু পুকুরে পানি থাকার কারণে রিটার্নিং ওয়ালের কাজ করতে পারছি না। যারা পুকুরটি লিজ নিয়েছে তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলেছে স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানাবে। এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা স্নেহশীষ দাস বলেন, রাস্তার পার্শ্বে যদি কোনো পুকুর থাকে তাহলে পুকুরের পাড়ও থাকতে হবে। যাতে রাস্তার কোনো ক্ষতি না হয়। এ ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়া আছে। যদি কোনো মৎস্য চাষি ওই নির্দেশনা না মানে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। সরকারি রাস্তার ক্ষতি সাধন করার কারো কোনো অধিকার নেই। কেউ ক্ষতি করতে চাইলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না।



 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর