× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার

পিয়াজ সিন্ডিকেট চিহ্নিতের চেষ্টা চলছে

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৯:০৮

যাদের কারণে পিয়াজের দাম বেড়েছে তাদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বলেন, সিন্ডিকেটের কারণে পিয়াজের দামের এই অবস্থা। সিন্ডিকেট চিহ্নিত হলে অবশ্যই তারা সাজা পাবে। বিভিন্ন দেশ থেকে প্রচুর পরিমাণে পিয়াজ আসছে। শিগগিরই দাম কমে যাবে। পিয়াজ, চাল, ধানসহ বিভিন্ন সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয় বলেই পরে তা আবার স্বাভাবিক হয়ে আসে। গতকাল আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পিয়াজের দাম সংক্রান্ত এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা জানান। এসময় তিনি জানান, দলের আসন্ন সম্মেলনে বিএনপিকে নিমন্ত্রণ করা হবে।
নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানোর পাশাপাশি কূটনীতিকদেরও দাওয়াত দেয়া হবে। যেহেতু মুজিববর্ষে বিদেশি অতিথিদের আমন্ত্রণ জানানো হবে, তাই এবারের সম্মেলনে কোনও বিদেশি মেহমানকে আমন্ত্রণ জানানো হবে না। তিনি বলেন, প্রতিবার যাদের আমন্ত্রণ করি, এবারও তাদের করব।

যারা জোটের অংশ, তাদের আমন্ত্রণ জানানো হবে। আমরা বিএনপিকেও দাওয়াত দেব। আওয়ামী লীগের সর্বশেষ জাতীয় সম্মেলন হয় ২০১৬ সালের ২২ ও ২৩ অক্টোবর। সেই হিসাবে গত অক্টোবরেই শেষ হয়েছে বর্তমান কমিটির মেয়াদ। ইতোমধ্যে পরবর্তী সম্মেলনের জন্য ২০ ও ২১ ডিসেম্বর তারিখ ঠিক করে প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী এ দলটি। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এখনই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে আসতে চান না।

তিনি বলেন, এখানে জয়ের ইচ্ছার ব্যাপারও আছে। নেত্রীকে এ নিয়ে কোনো কিছু বললে তিনি বলেন, জয় তো আসতে চায় না। এখনও তার আসার আগ্রহ নেই।  ২১তম জাতীয় সম্মেলনে তাকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে দেখা যাবে কি না- সেই প্রশ্নে তিনি বলেন, সেটা আমাদের পার্টির সভাপতি, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের বিষয়। জয় তো আছেনই। জয় যেভাবে আছেন সেভাবেই তিনি আপাতত থাকতে চান। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পীরগঞ্জ আসন থেকে জয়কে মনোনয়ন দেয়ার দাবি জানিয়েছিলেন অনেকে। কিন্তু জয় তাতে রাজি হননি বলে জানান ওবায়দুল কাদের। আগামী সম্মেলনে দলের সম্পাদকমন্ডলীতে নতুন কাদের দেখা যেতে পারে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, পুরনো মুখ, নতুন মুখ এটা ডিসাইড করার মালিক আমাদের সভাপতি। আমাদের গঠনতন্ত্রে তাকে এই ক্ষমতা দেয়া আছে।

আমাদের নেত্রী, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা, তিনি নির্ধারণ করবেন, কে আসবে দলে। আমাদের দলে শেখ হাসিনা ছাড়া আর কেউ অপরিহার্য ব্যক্তি নয়। আর নিজের পদে পরিবর্তনের সম্ভাবনা নিয়ে এক প্রশ্নে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেত্রী যা ইচ্ছা করবেন সেটাই হবে। তিনি পরিবর্তন চাইলে পরিবর্তন হবে। আমাদের এখানে কোনো প্রতিযোগিতা নেই। হয়ত কারও কারও ইচ্ছা, আকাংখা থাকতে পারে। সাধারণ সম্পাদক পদেও প্রার্থী থাকতে পারে। সেখানে কোনো অসুবিধা নেই। আমি যদি মনে করি আমার প্রতিদ্বন্ধী আর কেউ হতে পারবে না, এটা তো ঠিক হবে না।

আওয়ামী লীগের কমিটির পরিধি বাড়তে পারে কিনা- এ প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের কমিটির কলেবর এখন পর্য়ন্ত বাড়ানোর চিন্তা ভাবনা নেই। কমিটি ৮১ জনেরই থাকবে। আমাদের নেত্রী যেটা মনে করছেন, আপাতত কমিটিতে সংখ্যা বাড়ানোর কোনো ইচ্ছে নেই। বর্তমান কমিটিতে সদস্যের একটি এবং সভাপতিমন্ডলীর যে দুটি পদ খালি আছে,সেগুলো সম্মেলনের মধ্য দিয়েই পূরণ করা হবে বলে জানান তিনি। উপজেলা পর্যায়ের কমিটির নেতৃত্বে দলীয় সংসদ সদস্যদের না রাখতে দলীয় সভাপতির নির্দেশনা রয়েছে বলে জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, উপজেলা পর্যায়ে দেখা যাচ্ছে নিজস্ব নির্বাচনী এলাকায় সংসদ সদস্যরা সভাপতি পদপ্রার্থী হন, এটা নিরুৎসাহিত করছি। উপজেলা পর্যায়ে সংসদ সদস্যদের আমরা অনুরোধ করছি, তারা যেন সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে না এসে, ত্যাগী ও দুঃসময়ের নেতা-কর্মীদের একটা সুযোগ করে দেন। কারণ তাদেরও অধিকার আছে।

তারা এমপিও হতে পারেনি, দলেও নেতৃত্ব পাবে না- এটা তো হয় না। জাতীয় সম্মেলনের পরিকল্পনা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সম্মেলনের প্রথম দিন সাধারণ সম্পাদকের প্রতিবেদনটি আকারে কিছুটা বড় হলেও তিনি সংক্ষিপ্ত আকারে পড়বেন। এছাড়া থাকবে শোক প্রস্তাব। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন কাউন্সিল অধিবেশন হবে। যদি আমাদের ঘোষণাপত্র ও গঠনতন্ত্রে কোনো সংশোধনী থাকে, সেটার অনুমোদন নেয়া হবে। সংশোধনীর ব্যাপারে ইতোমধ্যেই আমরা জেলা শাখাগুলোতে চিঠি পাঠিয়েছি, তাদের কোনো প্রস্তাব আছে কিনা, সংযোজন, সংশোধন অথবা পরিমার্জন পরিবর্ধনে জেলা শাখার কোনো প্রস্তাব আছে কিনা, সে ব্যাপারে চিঠি পাঠাতে বলেছি। সহযোগী সংগঠনগুলার সম্মেলনে বিশৃঙ্খলা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ‘চোখে পড়ার মত’ সংঘাত আওয়ামী লীগে হয়নি। স্বেচ্ছাসেবক লীগের উত্তরের সম্মেলনে বসা নিয়ে দ্বন্ধের মধ্যে একটু চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়েছে, এটা সত্য। যারা যারা করেছে, তাদের ব্যাপারে স্বেচ্ছাসেবক লীগকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

এটা সিরিয়াসলি বলা হয়েছে। চট্টগ্রামে তো সম্মেলনকে কেন্দ্র করে কোথাও কোনো ঘটনা ঘটেনি। ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সম্মেলন এক সঙ্গেই হবে। কীভাবে সম্মেলন পরিচালিত হবে তা মহানগর নেতৃবৃন্দকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। আপনারা দেখেছেন এই সম্মেলনে একই মঞ্চেই আমরা সবগুলো সম্মেলন করব। দলের জাতীয় সম্মেলনও এ মঞ্চেই হবে। মঞ্চটার আকৃতি, আকার পরিবর্তন করেছি, এখন নৌকারে আদলে মঞ্চটা তৈরি হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবকলীগের জাতীয় সম্মেলন থেকে এই মঞ্চেই আমাদের সবগুলো সম্মেলন হবে। সে ব্যাপারে সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। এসময় অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম কামাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Nurul alam
১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৪:০৪

উদোর পিন্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো আ'লীগের চিরাচরিত স্বভাব।

আবু বকর
১৫ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৭:৪২

এখনও শুধুই চিহ্নিতের চেষ্টা?

অন্যান্য খবর