× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবরসাউথ এশিয়ান গেমস- ২০১৯
ঢাকা, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার
ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রক্রিয়া

আমি শুধু প্রেসিডেন্টের নির্দেশনা অনুসরণ করেছি

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ২২ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৭:৫৮

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন নিয়ে তদন্তে প্রকাশ্যে সাক্ষ্য দিলেন তারই একজন শীর্ষস্থানীয় দূত। তিনি হলেন ইউরোপীয় ইউনিয়নে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত গর্ডন সন্ডল্যান্ড। কংগ্রেসের প্রকাশ্য শুনানিতে গর্ডন সন্ডল্যান্ড বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে নির্দেশ দিয়েছিলেন আগামী বছর অনুষ্ঠেয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট দল থেকে তার সম্ভাব্য প্রধান প্রতিযোগী ও সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দুর্নীতির তদন্ত করতে ইউক্রেনের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে। অভিশংসনের শুনানিতে উপস্থিত হয়ে সন্ডল্যান্ড বলেছেন তিনি শুধু প্রেসিডেন্টের নির্দেশনা অনুসরণ করেছেন। তার প্রতি এমন নির্দেশনা এসেছিল ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি গিলিয়ানির তরফ থেকে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।

অভিযোগ আছে, জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টার বাইডেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত করতে ইউক্রেনকে চাপ দিয়েছিলেন ট্রাম্প। এ জন্য হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন ইউক্রেনকে দেয়া যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক সহায়তা। তিনি ওই সহায়তা বন্ধ করে দিয়েছিলেন, যাতে ইউক্রেন বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে বাধ্য হয়।
অভিযোগ করা হয়েছে, এর মাধ্যমে ট্রাম্প তার শপথ ভঙ্গ করেছেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। নির্বাচনে সুবিধা পাওয়ার জন্য বৈদেশিক সহায়তাকে ব্যবহার করা যুক্তরাষ্ট্রে অন্যায়। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কোনো অন্যায় করেন নি বলে জোর দিয়ে দাবি করেছেন। তবে তিনি আসলেই এসব করেছেন কিনা তা তদন্ত করা হচ্ছে। যদি তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায় তাহলে তাকে অভিশংসন প্রক্রিয়া এগিয়ে যাবে। আগামী বছর নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। সেই নির্বাচনে দ্বিতীয় মেয়াদে রিপাবলিকান দল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ট্রাম্প।

তবে ডেমোক্রেট দল থেকে কে পাবেন এই মনোনয়ন তা নিয়ে লড়াই শুরু হয়েছে। তার মধ্যে ফ্রন্টরানার বা এগিয়ে আছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তাকেই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে বিবেচনায় নিয়েছেন ট্রাম্প। অভিযোগে বলা হয়েছে, তাই বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য ইউক্রেনকে ব্যবহার করেছেন ট্রাম্প। এসব অভিযোগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রক্রিয়া শুরু করেছে ডেমোক্রেটরা। প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার, ডেমোক্রেট ন্যান্সি পেলোসি এর উদ্যোক্তা। তারই উদ্যোগে প্রতিনিধি পরিষদে প্রকাশ্য শুনানি হচ্ছে। এতে সর্বশেষ সাক্ষ্য দিলেন ইউরোপীয় ইউনিয়নে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত গর্ডন সন্ডল্যান্ড। তিনি শুনানিতে বলেছেন, জো বাইডেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির একটি তদন্তের বিষয়ে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জেলেনস্কির কাছ থেকে নিশ্চয়তা চাইছিলেন ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি গিলিয়ানি। জো বাইডেনের ছেলে হান্টার বাইডেন বুরিসমা নামের কোম্পানির পরিচালনা পরিষদের একজন সদস্য। রুডি গিলিয়ানি এই কোম্পানির কথা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করেছিলেন এবং তুলে ধরেছিলেন ২০২০ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ইস্যু। যদি প্রতিনিধি পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করা হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে উচ্চকক্ষ বা সিনেটে অভিশংসনের বিচার হতে পারে। কিন্তু এই সিনেট হলো ট্রাম্পের রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত। সেখানে তাকে অভিশংসিত করে ক্ষমতাচ্যুত করতে দুই তৃতীয়াংশ সদস্যের ভোট প্রয়োজন।

শুনানিতে গর্ডন সন্ডল্যান্ড তার শুরুর বক্তব্যে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্দেশনা মতো রুডি গিলিয়ানির সঙ্গে কাজ করেছেন। গর্ডন সন্ডল্যান্ড বলেছেন, তিনি যেহেতু ইউরোপীয় ইউনিয়নে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত তাই অন্য দেশগুলোর পাশাপাশি তিনি ইউক্রেনের সঙ্গেও কাজ করেছেন, যদিও এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য নয়। তিনি বলেছেন, আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে, যদি আমি রুডি গিলিয়ানির সঙ্গে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানাই তাহলে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউক্রেনের মধ্যে সম্পর্ককে বজ্রকঠিন করার গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ হারাবো আমরা। তাই আমরা প্রেসিডেন্টের নির্দেশনা অনুসরণ করেছি।

গর্ডন সন্ডল্যান্ড আরো নিশ্চিত করে বলেছেন, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কিকে হোয়াইট হাউসে সফরের বিনিময়ে ওই দুর্নীতির একটি তদন্ত দাবি করেছিলেন ট্রাম্প। এর অর্থ হলো একটি সুবিধা দেয়ার বিনিময়ে আরেকটি সুবিধা পাওয়া।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর