× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২০ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার
চট্টগ্রাম-৮ উপনির্বাচন

আওয়ামী লীগ, বিএনপি জাপার প্রার্থী চূড়ান্ত

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৮:২২

জাসদের প্রয়াত নেতা মইন উদ্দীন খান বাদলের চট্টগ্রাম-৮ বোয়ালখালী-চান্দগাঁও শূন্য আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি। আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীও। বুধবার দুপুরে বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর প্রার্থিতা ঘোষণা করেন দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের। এর আগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহসভাপতি আবু সুফিয়ানকে মনোনয়নের সিদ্ধান্ত নেন দলীয় মনোনয়ন বোর্ড। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক ইদ্রিস আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে প্রার্থী হতে ৩ নেতার সাক্ষাৎকার নেয়া হয়। এরা হলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহসভাপতি ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ খান ও চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাবেক যুগ্ম-সমপাদক এরশাদ উল্লাহ।

অন্যদিকে, এ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপি থেকে সদ্য পদত্যাগ করা সাবেক সংসদ সদস্য মোরশেদ খানও স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার গুঞ্জন চলছে।
রোববার চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিস থেকে তার নামে ফরম সংগ্রহ করেছেন বিএনপির চান্দগাঁও থানা কমিটির সাধারণ সমপাদক শরীফ উদ্দীন খান। এ ঘটনায় বিএনপির অভ্যন্তরে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে আবু সুফিয়ান বলেন, চট্টগ্রাম-৮ আসনে আমি আগেও নির্বাচন করেছি। এবারও মনোনয়ন পেয়েছি। তবে এরশাদ উল্লাহ ও তার অনুসারীরা মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে পেরে না উঠে অপকৌশল অবলম্বন করছেন। এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় মনোনয়ন প্রত্যাশী ১৯ নেতার সাক্ষাৎকার শেষে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়নের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন মনোনয়ন বোর্ড।

প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, মোছলেম উদ্দিন শুধু বঙ্গবন্ধুর কর্মী হিসেবে নয়, এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সবার চেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ ও ত্যাগী নেতা। ১৯৬৯ সালে চট্টগ্রাম কমার্স কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ও চট্টগ্রাম শহর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সমপাদক নির্বাচিত হন তিনি। ১৯৭০ সালে চট্টগ্রাম শহর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সমপাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭২ সালে ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম শহর শাখার সাধারণ সমপাদক নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে প্রয়াত আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর সাথে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘ বছর দায়িত্ব পালন করেন। বাবুর মৃত্যুর পর মোছলেম উদ্দিন গত ৭ বছর ধরে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। সমপ্রতি নিজের মনোনয়ন লাভের যৌক্তিকতা তুলে ধরে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রবীণ এ নেতা বলেন, আমি বাসদ করিনি, জাসদ করিনি, আব্দুর রাজ্জাকের বাকশাল করিনি। আজীবন আওয়ামী লীগ করেছি। মুক্তিযুদ্ধ করেছি। কারাভোগ করেছি। আমার বাড়িঘর ভাঙচুর হয়েছে। চট্টগ্রামের সকল আন্দোলন-সংগ্রামে মহিউদ্দীন চৌধুরীর সাথে থেকে কাজ করেছি। আমি রাষ্ট্রদূত হতে চাইনি, ব্যাংকের পরিচালক হতে চাইনি, সিডিএর চেয়ারম্যান হতে চাইনি। পটিয়া থেকে আমাকে যখন মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল তখন দলের দুঃসময় ছিল। তাই আমি মনে করি এবার আমার সুযোগ পাওয়া উচিত। এদিকে, বুধবার দুপুরে বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর প্রার্থিতা ঘোষণা করেন দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

জিএম কাদের বলেন, চট্টগ্রাম-৮ আসনে উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে লড়বেন জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু।

জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ২০০৮ সালের নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে নিজ আসন চট্টগ্রাম-৬ থেকে নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৯ আসনে মহাজোট থেকে এমপি নির্বাচিত হন। ২০১৮ সালের নির্বাচনে অবশ্য চট্টগ্রাম থেকে নির্বাচন করেননি তিনি।

উল্লেখ্য, মইন উদ্দীন খান বাদল গত ৭ই নভেম্বর ভারতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এর আগে তিনি নবম, দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদে চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মইন উদ্দীন খান বাদল মারা যাওয়ায় তার আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়।

আগামী ১৩ই জানুয়ারি এ আসনের উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী ১২ই ডিসেম্বর পর্যন্ত এ আসনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া যাবে। ১৫ই ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার শেষ সময় ২২শে ডিসেম্বর। নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নেয়া হবে এমন প্রস্তুতি নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মুনীর হোসাইন খান।
নির্বাচন কমিশনের তথ্যমতে, চট্টগ্রাম-৮ আসনটি সিটি করপোরেশনের ৩, ৪, ৫, ৬নং ওয়ার্ড এবং বোয়ালখালী উপজেলার কধুরখীল ইউনিয়ন, পশ্চিম গোমদণ্ডী ইউনিয়ন, পূর্ব গোমদণ্ডী ইউনিয়ন, শাকপুরা ইউনিয়ন, সারোয়াতলী ইউনিয়ন, পোপাদিয়া ইউনিয়ন, চরণদ্বীপ ইউনিয়ন, আমুচিয়া ইউনিয়ন ও করলডেঙ্গা ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। এ আসনে মোট ভোটার চার লাখ ৭৫ হাজার ৯৮৮। তন্মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ৯২২ ও নারী ভোটার ২ লাখ ৩৪ হাজার ৭৪ জন। কেন্দ্র সংখ্যা ১৮৯টি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর