× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ঢাকা সিটি নির্বাচন- ২০২০ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

লেবার পার্টির নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা করবিনের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১০:১৮

সাধারণ নির্বাচনে বিপর্যয়কারী পরাজয়ের সম্মুখীন বৃটেনের প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টি। দলের এই পরাজয়ের ভার কাঁধে নিয়ে নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন জেরেমি করবিন। প্রাথমিক ফলাফল অনুসারে, ১৯৩৫ সালের পর এই প্রথম সবচেয়ে কম আসনে জিততে যাচ্ছে লেবার পার্টি। এ খবর দিয়েছে বৃটিশ গণমাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফ।
খবরে বলা হয়, আগামী নির্বাচনের আগেই দলপ্রধানের পদ থেকে সরে যাবেন করবিন। তবে দলের বর্তমান অবস্থা বিবেচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ বিবেচয়া করতে আরো কয়েকদিন দায়িত্ব পালন করে যাবেন তিনি। দল হারলেও, নিজের নির্বাচনী আসন আইসলিংটন নর্থে দশম বারের মতো জয়ী হয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, তার দল আশা জাগানিয়া একটি ইশতেহার তৈরি করেছিল। তাদের ইশতেহার জনপ্রিয়ও ছিল তবে ব্রেক্সিট নির্বাচনের ধারাপ্রবাহ পাল্টে দিয়েছে।

লেবার নেতা বলেন, আমি এটা পরিষ্কার করতে চাই যে, আগামী কোনো সাধারণ নির্বাচনের প্রচারণায় আমি দলকে নেতৃত্ব দেবো না। নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে প্রতিফলন করার ব্যাপারে আমি দলের সঙ্গে আলোচনা করবো। দলের ভবিষ্যৎ নীতিমালা নিয়েও আলোচনা করবো। এ সময়টায় আমি দলকে নেতৃত্ব দেবো ও ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাবো।
নিজের বক্তব্যে গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে তার ব্যক্তিগত জীবনে অনুপ্রবেশ করার অভিযোগ আনেন করবিন। বলেন, এ ধরনের পরিস্থিতি এমনিতেই প্রচ- চাপে থাকেন রাজনীতিবিদরা। এর মধ্যে ব্যক্তিগত জীবনে গণমাধ্যমের অনুপ্রবেশ খুবই উচ্চমাত্রায় ছিল। তিনি তার বক্তব্যে তার স্ত্রী লরা আলভারেজকে গণমাধ্যমের আচরণ যথাযথভাবে সামলে চলার জন্য ধন্যবাদ জানান।
প্রসঙ্গত, লেবারের বিপর্যয়কারী পরাজয় আগ থেকেই অনুমেয় ছিল। দলের নেতারা এই ফলাফলের জন্য করবিনকেই দায়ী করছেন। নির্বাচনের প্রাথমিক ফলাফল অনুসারে, দলটি তাদের বহু শক্ত ঘাঁটি হারিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, ব্লাইথ ভ্যালি। এই আসনটি বিগত ৬৯ বছর ধরে লেবারের দখলে ছিল।
সর্বশেষ খবর অনুসারে, লেবার ২০৩টি আসনে জয়ী হয়েছে। অন্যদিকে ৩৬১ আসনে জয়ী হয়েছে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন নেতৃত্বাধীন কনজারভেটিভ পার্টি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর