× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার

৩ মাস বয়সী পুলিশ পুত্র হত্যার অভিযোগ

অনলাইন

সেনবাগ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি | ২৭ জানুয়ারি ২০২০, সোমবার, ৩:১৭

নোয়াখালীর সেনবাগ থানা পুলিশের কনস্টবল সুমন সরকারের ৩ মাস বয়সের একমাত্র পুত্র তুর্যকে পানিতে ফেলে হত্যা করেছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। রোববার  রাতে পৌরশহরের বিন্নাগুনী বাবুলের ভাড়া করা ঘর থেকে কে বা কাহারা শিশুটিকে দৌলনা থেকে নিয়ে পাশ্ববর্তী পুকুরে ফেলে  নির্মমভাবে হত্যা করে।
 
সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে তুর্যের মা বেবী মারমা সন্তানকে দোলনায় রেখে বাথরুমে প্রবেশ করে। বের হয়ে দেখেন তুর্য দোলনায় নেই। পুরো বাড়ীতে তল্লাশী চালায়। এক পর্যায়ে বাসা থেকে একশত ফুট অদূরে পুকুরের পানিতে মরদেহ ভাসতে দেখে, তাৎক্ষণিক তুর্যকে পানি থেকে তুলে এনে সেনবাগ সরকারী হাসপাতাল ও পরে চৌমুহনীতে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: শাহজাহান শেখ, সেনবাগ থানার ওসি মো: মিজানুর রহমান সহ পুলিশ কর্মকর্তারা  ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে সেনবাগ থানা পুলিশ শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করেছেন।
নিহত তুর্যের পিতা কনস্টেবল নং ৮৫১ সুমন সরকার দীর্ঘ  দুই বছর সেনবাগ থানায় কর্মরত রয়েছেন। চাকুরীর সুবাদে তারা পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের বিন্নাগুনী বাবুলের বাড়ীতে ভাড়া করা বাসায় বসবাস করে আসছে।  একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে পিতা মাতা বাকরুদ্ধ।

রাত ১২ টায় নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: শাহজাহান শেখ শিশু হত্যা ও মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এছাড়া সোমবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য লাশ নোয়াখালীর মর্গে পাঠানো হয়েছে।
নিহত তুর্যের মা বেবী মারমা বাদী হয়ে হত্যা মামলার প্রস্ততি চলছে।
 
কনস্টেবল সুমন সরকারের দেশের বাড়ী চাঁদপুর জেলার মতলব এলাকায়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর