× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেট
ঢাকা, ২ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার

করোনা মোকাবিলায় পশ্চিমবঙ্গে জনপ্রতিনিধিদের অর্থ বরাদ্দ

দেশ বিদেশ

কলকাতা প্রতিনিধি | ২৬ মার্চ ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:১৬

করোনা মোকাবিলায় হাসপাতাল ও চিকিৎসার পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য জরুরিভিত্তিতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। এ কথা মাথায় রেখেই পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রন্ট এবং বিজেপি’র জনপ্রতিনিধিরা তাদের এলাকা উন্নয়ন তহবিল থেকে অর্থ বরাদ্দের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বামফ্রন্টের বিধায়করা তাদের বিধায়ক তহবিল থেকে ন্যূনতম ১০ লাখ রুপি করে অর্থ বরাদ্দের কথা জানিয়েছেন। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়ে ওই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছেন বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী। তিনি বলেছেন, তাদের বিধায়ক তহবিল থেকে এই বরাদ্দের কথা সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের দ্রুত জানিয়ে দেয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রীকে সুজন বাবু লিখেছেন, ‘কভিড-১৯’-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এটি একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস। মুখ্যমন্ত্রী বাম বিধায়কদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রীর মতে, এই বিপর্যয়ের সময়ে এবং ভয়াবহ এক যুদ্ধের ক্ষেত্রে এক একজন নাগরিকের এক একটি টাকাও রাজ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
বামদের মতো একজোট হয়ে সিদ্ধান্ত না নিলেও বিজেপি’র সাংসদরা নিজেদের মতো করে রাজ্যে করোনা তহবিলে অর্থ বরাদ্দ শুরু করেছেন। হুগলির বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় এবং বাঁকুড়ার সাংসদ সুভাষ সরকার  নিজেদের সাংসদ তহবিল থেকে এক কোটি রুপি করে দেয়ার ঘোষণা করেছেন। কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরীসহ রাজু বিস্ত, জন বার্লা, নিশীথ প্রামাণিক, কুঁওয়ার হেমব্রম ৫০ লাখ রুপি করে এবং সুকান্ত মজুমদার ৩০ লাখ রুপি করোনা মোকাবিলায় দেয়ার কথা জানিয়েছেন। এই অর্থ কোন হাসপাতালে কীভাবে খরচ হবে, তা ঠিক করার ভার সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের উপরেই ছেড়ে দিচ্ছেন তারা। এদিকে, করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের জন্য আর্থিক সহায়তা চেয়ে শাসক ও বিরোধী সব দল মিলিতভাবে আর্জি জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কাছে। গত মঙ্গলবারই প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে করোনা মোকাবিলার জন্য ১৫ হাজার কোটি রুপি বরাদ্দের কথা জানিয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর