× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ২৬ মে ২০২০, মঙ্গলবার

পুরোনো ঢাকায় মানবতার সেবায় ‘ব্যক্তিগত উদ্যেগ’

মন ভালো করা খবর

কাজল ঘোষ | ১৩ এপ্রিল ২০২০, সোমবার, ২:৫৬

শুধু রাজধানী নয়। বাংলাদেশের সবচেয়ে ঘনবসতি অঞ্চলও এটি। এলাকাটি সূত্রাপুর- কোতোয়ালী। এখানে বাসরত বিপুল জনগোষ্ঠী নিম্নমধ্যবিত্ত। খেটে খাওয়া দিনমজুরের সংখ্যাও এ এলাকায় কম নয়। অনিশ্চিত লকডাউনে শঙ্কায় আছেন দিনের রুটি, রুজির উপর নির্ভর খেটে খাওয়া মানুষেরা। তাদের বড় একটি অংশ ধরনা দিচ্ছেন উচ্চবিত্তদেও বাড়ি বাড়ি। মতিঝিল থেকে সদরঘাট।
গুলিস্তান থেকে গেন্ডারিয়া। খেয়াল করলে এমন দৃশ্য চোখে পড়বে হরহামেশাই। অনেকেই রাস্তায় অথবা ফুটপাতে অপেক্ষা করছেন কখন আসবে খাবার গাড়ি। সরকারিভাবে দিনমজুর আর নিম্নবিত্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে প্রশাসন। কিন্তু এর বাইরে ব্যক্তিগত কিছু উদ্যোগও লক্ষণীয়।


যারা নানাভাবে সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন ক্ষুধার্থ আর অসহায় এমন মানুষদের পাশে। তেমন একটি পরিবার গেন্ডারিয়ার ৪৬ নং ওয়ার্ডের প্রায় ৫০০ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে।
মোহাম্মদ ইসলাম, মোহাম্মদ জাবেদ ও মোহাম্মদ জসিম। তিন ভাইসহ পরিবারের সদস্যরা সকলে মিলে চাল, ডাল, আলু, তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় আরও কিছু পণ্য তুলে দিয়েছেন দরিদ্র পরিবারের মধ্যে। মোহাম্মদ জসিম স্থানীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু অন্য দু ভাই ব্যবসায়ী হলেও মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এলাকার অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্য সহায়তা।


 কলতাবাজারের ব্যবসায়ী মোহাম্মদ ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে আমরা ৫০০ পরিবারের কাছে সাহায্য পৌঁছে দিয়েছি। আরও কিছু পরিবারকে সহায়তা পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা অব্যাহত আছে। একেক প্যাকেটে ৫ কেজি চাল, ২ কেজি আলু, ২ কেজি পিয়াজ, ১ কেজি মশুরি ডাল, ১ লিটার তেল, লবান ও সাবান দিয়েছে। যেন প্রতিটি পরিবার অন্তত এক সপ্তাহ খেতে পারেন।
একইভাবে এগিয়ে এসেছে সুত্রাপুর থানা আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা প্রয়াত নজরুল ইসলাম খান বাদল-এর ছোট ছেলে ও সাবেক সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান খান দিপুর ছোট ভাই, থানা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি আসাদুর রহমান খান টিপু ও তার সহধর্মিনী তাহমিনা রহমান খান লুনা।  ৫৫ নং তনুগঞ্জ  লেন, কাঠেরপুল এলাকার বাসিন্দা এই দম্পতি এলাকার ৩০০ শত পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর