× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৩০ মে ২০২০, শনিবার

উপকূলে আঘাত হেনেছে আম্ফান

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ মে ২০২০, বুধবার, ৭:৩৭

প্রবল গতিতে সুন্দরবন উপকূলে আঘাত হেনেছে সুপার সাইক্লোন আম্ফান। বুধবার বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় ৬০-৭০কিলোমিটার গতিতে আম্ফানের অগ্রভাগ আঘাত হানে। একই সঙ্গে ধীরে ধীরে আঘাতের মাত্রা বাড়ছে আম্ফানের। এসব তথ্য জানিয়েছেন সাতক্ষীরা আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জুলফিকার আলী।

তিনি বলেন, বুধবার রাত ৮টার দিকে ঘূর্ণিঝড়টি পুরোদমে আঘাত হানবে উপকূলে। বিকাল ৪টার দিকে সাতক্ষীরা উপকূলে ২০-৩০ কিলোমিটার গতিতে আঘাত হানার পর ধীরে ধীরে মাত্রা বাড়ছে আম্ফানের। বর্তমানে ঘূর্ণিঝড়টি ঘণ্টায় ২০ কিলোমিটার গতিবেগে এগোচ্ছে। রাত ৮টার দিকে ঘণ্টায় গতিবেগ থাকবে ১৮০-২০০ কিলোমিটার।

এদিকে উপকূলীয় এলাকাসহ সাতক্ষীরায় ঝড় শুরু হয়েছে। ঝড়ের সঙ্গে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিও হচ্ছে।
এরই মধ্যে উপকূলের বাসিন্দারা আশ্রয়কেন্দ্রে চলে গেছেন।

সাতক্ষীরার উপকূলীয় শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনম আবুজর গিফারী বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্ফান উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হেনেছে। উপকূল অতিক্রম করে সামনে অগ্রসর হচ্ছে ঘূর্ণিঝড়টি। তবে এখনও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। উপকূলীয় এলাকার ১ লাখ ৪০ হাজার বাসিন্দাকে আমরা নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছি।

এর আগে সকাল ৬ টায় মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়। খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, পিরোজপুর ও বরগুনাসহ উপকূলীয় জেলা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহ ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে। বুধবার সারারাত ধরে আম্ফান সুন্দরবন উপকূল অতিক্রম করবে।

খুলনা আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ আমিরুল আজাদ বলেন, বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের অগ্রভাগ সুন্দরবন সংলগ্ন কয়রা ও সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আঘাত হেনেছে। ওই এলাকায় বর্তমানে বাতাসের গতিবেগ ৬০-৭০ কিলোমিটার।

এদিকে, আম্ফানের প্রভাবে গত মঙ্গলবার গভীর রাত থেকে খুলনা অঞ্চলে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। সুন্দরবন সংলগ্ন নদ-নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ থেকে সাড়ে ৩ ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ১০-১৫ ফুট অধিক উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাস নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হতে পারে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর