× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার

যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি উপেক্ষা করে ভেনেজুয়েলায় পৌঁছল ইরানি ট্যাঙ্কার

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৭ মে ২০২০, বুধবার, ৯:০২

যুক্তরাষ্ট্রের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করেই ভেনেজুয়েলায় পৌঁছেছে ইরানের তেলের ট্যাঙ্কার। ইরানের এমন আরও মোট ৪টি তেলের ট্যাঙ্কার ভেনেজুয়েলায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে। প্রথম ট্যাঙ্কারেই ১০ লাখ ব্যারেলের চেয়েও বেশি জ্বালানী রয়েছে। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। খবরে বলা হয়, আন্তর্জাতিক সমুদ্রসীমা পার হয়ে ভেনেজুয়েলার সীমানায় পৌছানোর পর ইরানের তেলের ট্যাঙ্কারকে এসকোর্ট করে নিয়ে যায় ভেনেজুয়েলার বিমান ও নৌ বাহিনী।

উভয় দেশের ওপর অবরোধ আরোপ করা যুক্তরাষ্ট্র বলছে, তেলবাহী ট্যাঙ্কারের বহরের প্রতি নজরদারি করছে তারা। আর ভেনেজুয়েলা ও ইরান উভয়েই যুক্তরাষ্ট্রকে হস্তক্ষেপ না করতে হুঁশিয়ারি করে দিয়েছে।

খবরে বলা হয়, বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ তেলের মজুত থাকা সত্ত্বেও পরিশোধিত তেলের সংকটে ভুগছে ভেনেজুয়েলা। ইরানি পরিশোধিত তেল আসায় ইরানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো। তিনি বলেন, ‘উত্তর আমেরিকার সাম্রাজ্যবাদের কাছে নতি স্বীকার না করা দুই বিপ্লবী রাষ্ট্র হলো ইরান ও ভেনেজুয়েলা।’ টেলিভিশনে সম্প্রচারিত রাষ্ট্রীয় বার্তায় তিনি বলেন, ‘ভেনেজুয়েলা ও ইরান উভয় দেশই শান্তি চায়।

মুক্তভাবে বাণিজ্য করার অধিকার রয়েছে আমাদের।’ প্রসঙ্গত, ভেনেজুয়েলা ও ইরানের যেকোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বাণিজ্য করার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। এবার এই দুই দেশেই একে অপরের সঙ্গে বাণিজ্য করছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মরগ্যান অরটাগুস রোববার বলেন, ‘ভেনেজুয়েলানদের মুক্ত ও স্বাধীন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন প্রয়োজন। যেন দেশে গণতন্ত্র ও অর্থনৈতিক পুনর্জাগরণ শুরু হয়। আরেকটি একঘরে রাষ্ট্রের সঙ্গে ব্যায়বহুল চুক্তি করবে মাদুরো, তা তারা চায় না।’

খবরে বলা হয়, ফরচুন, ফরেস্ট, পেটুনিয়া, ফ্যাক্সন ও ক্ল্যাভেল নামে ৫টি তেলবাহী ইরানিয়ান ট্যাঙ্কার মোট ১৫ লাখ ব্যারেল তেল বহন করছে। এই মাসের শুরুতেই ট্যাঙ্কার ৫টি মিশরের সুয়েজ খাল অতিক্রম করেছে। এদের মধ্যে ফরচুন পৌঁছেছে। এদিকে শনিবার ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, তার দেশের ট্যাঙ্কার বাধাগ্রস্ত হলে প্রতিশোধ নেওয়া হবে। প্রসঙ্গত, ভেনেজুয়েলার পার্শ্ববর্তী ক্যারিবিয়ান সাগরে অবৈধ মাদক পাচার রোধে মার্কিন নৌবাহিনী ও কোস্ট গার্ডের একটি বহর টহল দিচ্ছে। তবে মার্কিন কর্মকর্তারা ইরানি তেলবহর ঠেকানোর কোনো পরিকল্পনার ঘোষণা দেননি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
২৬ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ৮:৪৫

মায়ের চেয়ে মাসীর দরদ বেশী । অবরোধ দিয়ে জনগণকে মারছে তারপরও জনগণের জন্য মায়া কান্নাকাটি করছে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট চাই।

অন্যান্য খবর