× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৪ জুলাই ২০২০, শনিবার

স্টোকসের ‘আগুনে’ ঘি ঢাললেন মুশতাক

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১ জুন ২০২০, সোমবার, ৬:৩৯

গত বছর ওয়ানডে বিশ^কাপের রাউন্ড রবিন লীগে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩১ রানে হেরে যায় ভারত। ম্যাচের পর মহেন্দ্র সিং ধোনির মন্থর ব্যাটিং নিয়ে যা একটু সমালোচনা হয়েছিল। কিন্তু বেন স্টোকসের আত্মজীবনী ‘বেন স্টোকস অন ফায়ার’-এ এক বিতর্কিত মন্তব্য ভারতের হারকে প্রশ্নবিদ্ধই করেছে। স্টোকস বলেছেন, ম্যাচটা জেতার জন্য কোনো চেষ্টা করতে দেখেননি ধোনিদের। তাতে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। কারণ ওই ম্যাচে ভারতের হারে সেমিফাইনালে খেলার পথ কার্যত রুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল পাকিস্তানের। পাকিস্তানের ক্রিকেট ভক্তরা এখন দাবি তুলেছেন, এটা ভারতের ইচ্ছাকৃত হার। একই কথা বলছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটাররাও।
এবার বিতর্কটা আরো উসকে দিলেন দেশটির কিংবদন্তি লেগস্পিনার মুশতাক আহমেদ।
ইংল্যান্ডের ৩৩৭ রান তাড়া করতে নেমে একটা সময় জেতার অবস্থানে ছিল ভারত। কিন্তু উইকেটে মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো ফিনিশার থাকা সত্ত্বেও ম্যাচটা জিততে পারেনি তারা। ধোনি সেদিন কোনো ঝুঁকিই নেননি। এ নিয়ে আত্মজীবনীতে স্টোকস লিখেছেন, ‘ধোনি যখন খেলতে নামেন, ১১ ওভারে ১১২ রান দরকার ছিল। কিন্তু তিনি যেভাবে খেলছিলেন সেটা ছিল অবাক করার মতো। ৬ রানের বদলে শুধু সিঙ্গেলস নিচ্ছিলেন ধোনি। ১২ বল বাকি থাকতেই এই ম্যাচ জিততে পারতো ভারত। হয়তো ম্যাচটা জেতার খুব অল্প বা কোনও অভিপ্রায় ছিল না ধোনি ও তার পার্টনার কেদার যাদবের। কিন্তু আমার কেন জানি মনে হয় ভারত ওই ম্যাচ জিততে পারতো।’
পাকিস্তানের সাবেক লেগস্পিনার মুশতাক আহমেদ আবার গত বিশ^কাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের স্পিন পরামর্শকের দায়িত্বে ছিলেন। মুশতাক জানালেন, ভারতের হার নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটারদের মাঝেও আলোচনা হয়েছিল তখন। তিনি বলেন, ‘গত বছরের বিশ^কাপে আমি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে কাজ করি। ইংল্যান্ডের কাছে ভারতের হারের পর জেসন হোল্ডার, ক্রিস গেইল ও আন্দ্রে রাসেল আমাকে বলে যে, ‘মুশি (মুশতাক আহমেদ) ভারত চায় না পাকিস্তান সেমিফাইনাল খেলুক।’
এর আগে পাকিস্তানের সাবেক বোলার সিকান্দর বখত দাবি তোলেন পাকিস্তানকে বাদ দেয়ার জন্য ইচ্ছা করে হেরেছিল ভারত। নিজের দাবির যৌক্তিকতা পোক্ত করতে টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেন বখত। যদিও বিতর্ক এড়াতে এখন স্টোকস বলছেন, ‘আমার কথা ঘুরিয়ে দেয়া হয়েছে। আপনারা আমার বইয়ে এমন লেখা পাবেন না। আমি এমন কিছু বলিনি।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর