× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার

করোনায় অ্যান্টিবায়োটিক অধিক ব্যবহারে বিশ্বজুড়ে মৃত্যু বাড়বে: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:৫১

করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) রোগীদের চিকিৎসায় অ্যান্টবায়োটিকের অধিক ব্যবহারে বিশ্বজুড়ে মৃত্যুর হার বাড়বে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটি বলেছে, অ্যান্টিবায়োটিকের অতিব্যহারের ফলে মানুষের শরীরে ব্যাক্টেরিয়ার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস পাবে। এতে এই মহামারি চলাকালীন ও পরবর্তী সময়ে বিশ্বজুড়ে ব্যাক্টেরিয়াজনিত সংক্রমণে মৃত্যু বাড়তে পারে। এ খবর দিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রস আধানম ঘেব্রিয়েসুস সোমবার বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে ‘উদ্বেগজনক সংখ্যক’ ব্যাক্টেরিয়াজনিত সংক্রমণের চিকিৎসায় প্রচলিত ওষুধগুলোর কার্যক্ষমতা হ্রাস পেয়েছে। সংক্রমণগুলো ওইসব ওষুধের বিরুদ্ধে শক্তিশালী হয়ে উঠছে। জাতিসংঘের স্বাস্থ্য বিষয়ক সংস্থাটি আশঙ্কা প্রকাশ করেছে, এই করোনা মহামারিতে ব্যাক্টেরিয়া সংক্রমণজনিত সংকট আরো বাড়তে পারে। ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে টেড্রস বলেন, করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে।
কিন্তু এর চূড়ান্ত পরিণতি হবে, বিশ্বজুড়ে ব্যাক্টেরিয়াগুলোর মধ্যে ওষুধ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়া। এর প্রভাব করোনা মহামারি চলাকালীন ও পরবর্তী সময়ে দেখা যাবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানায়, ব্যাক্টেরিয়াজনিত সংক্রমণ এড়াতে খুবই কম সংখ্যক করোনা রোগীর চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে। সংস্থাটি এ বিষয়ে বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য নির্দেশনা প্রকাশ করেছে। তাদের নির্দেশনা দিয়েছে, স্বাস্থ্যকর্মীদের মৃদু উপসর্গের করোনা রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক বা প্রতিরোধমূলক স্বাস্থ্যসেবা দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া, ব্যাক্টেরিয়াজনিত সংক্রমণের ব্যাপারে ক্লিনিক্যাল সন্দেহ না থাকলে মাঝারি মাত্রার করোনা রোগীদেরও অ্যান্টিবায়োটিক দিতে নিষেধ করা হয়েছে। অ্যান্টিবায়োটিকের অযাচিত ও অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহারের ফলে রোগ-জীবাণু এর বিরুদ্ধে শক্তিশালী হয়ে উঠে। তখন ব্যাক্টেরিয়াজনিত রোগ সারাতে প্রচলতি অ্যান্টিবায়োটিকগুলোর কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়। চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় এটি অ্যান্টিবায়োটিক তথা ‘অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিসট্যান্স’ নামে পরিচিত। প্রসঙ্গত, ‘অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল’ বলতে আমরা মানব দেহে রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণু তথা ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক কিংবা পরজীবীর বিরুদ্ধে কার্যকর, প্রাকৃতিকভাবে প্রাপ্ত বা কৃত্রিমভাবে প্রস্তুত করা ওষুধকে বোঝায়। অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিসট্যান্সকে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে কঠিন সংকটের একটি হিসেবে বর্ণনা করেছেন টেড্রস। তিনি বলেন, এটা স্পষ্ট যে, বিশ্বজুড়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ওষুধগুলো কার্যকারিতা হারাচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
SJ
২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ১২:৪০

বহু বার বলছি 50% করোনা রুগী মৃত্যুবরন করছে ভুল চিকিৎসায়। এন্টিবায়োটিক ক্ষতি করে যাচ্ছে তাও বলছি। হয়তো বাংলা ভাষার কোনো ডাক্তারই সে কথা মেনে চলেনি। মানবে কি? আমার তো পরিচয় নেই। মুখস্ত বিদ্যার বাংলা ভাষার ডাক্তারগণকে বলছি দূরে থাকুন রেমডেসিভির হইতে। মহা প্রলয় ভয়ে আনবে কিন্তূ। রেমডেসিভির বাণিজ্যিক ভূমিকায় আছে। যাহা মুখস্ত বিদ্যার ডাক্তারগণ উপলব্ধি করতে পারবে না। বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থা আজ বলছে কাল তো বিশ্ব মুখস্ত বিদ্বানগণ ফুস ফাঁস শুরু করে দিবে। বেশীর ভাগ মানুষ তো জ্ঞেয়ান হীন হইয়া আছে।।

অন্যান্য খবর