× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকরোনা আপডেটকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজান
ঢাকা, ৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার

দেবিদ্বারে লাশ নিয়ে বসেছিলেন স্ত্রী-সন্তানরা, দাফনে আসেনি এলাকাবাসী

বাংলারজমিন

 স্টাফ রিপোর্টার, কুমিল্লা থেকে | ৪ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:৩০

কুমিল্লার দেবীদ্বারে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির লাশ নিয়ে স্ত্রী ও সন্তানরা বসেছিলো সারা রাত। সহানুভূতি জানাতেও আসেনি কেউ। পর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার উদ্যোগে দাফন করা হয়। এমন অমানবিক ঘটনাটি ঘটেছে দেবিদ্বার উপজেলা বরকামতা ইউনিয়নের বাগুর গ্রামে।
জানা যায়, মঙ্গলবার রাত ১০টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান বাগুর পশ্চিম পাড়ার মৃত সৈয়ত আলীর ছেলে আবুল হোসেন (৪৫)। তিনি গত কয়েক দিন যাবৎ জ্বর-ঠান্ডা ও কাঁশিসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে ঘরে বসেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। তার মৃত্যুর সংবাদে আত্বীয়-স্বজন ও এলাকাবাসীর কেউ এগিয়ে আসেনি। মৃত্যুর পর সমস্ত রাত লাশ নিয়ে বসে থাকেন অসহায় স্ত্রী সন্তানরা।
খবর পেয়ে সকাল সাড়ে ১০ টায় কুমিল্লা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা লিটন সরকারের উদ্যোগে লাশের গোসল, জানাযা ও দাফন সম্পন্ন করা হয়।
এ ব্যাপারে লিটন সরকার জানান, একজন মানুষের মৃত্যুর পর লাশ দাফনে তার আত্বীয়-স্বজনরা এগিয়ে আসবে না এটা খুবই দুঃখজনক। করোনা রেড জোন খ্যাত দেবীদ্বারে এ সমস্যা দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই করোনায় মৃতদের দাফনে আমার নিজ উদ্যোগে সেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের নিয়ে ১০১ জনের একটি টিম গঠন করেছি এবং বিভিন্ন স্থানে করোনায় মৃতদের লাশ দাফন কাজ করে যাচ্ছি। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া আবুল হোসেনের পাশে তার স্ত্রী সন্তানরা ছাড়া কেউ ছিলো না। খবর পেয়ে আমরা গিয়ে লাশ দাফন করি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর