× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার

করোনা সন্দেহে হাসপাতালের গেটে মাকে ফেলে গেলো ছেলে

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ৬ জুন ২০২০, শনিবার, ৮:০০

করোনা আক্রান্ত সন্দেহে এক মাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গেটের সামনে তিনদিন আগে ফেলে গেছে তার সন্তান। পরে অবস্থার অবনতি হলে খবর পেয়ে হাসপাতাল ক্যাম্পের পুলিশ তাকে ঢামেকের করোনা ইউনিটে ভর্তি করিয়েছে। আজ বিকাল তিনটার দিকে ওই নারীকে ভর্তি করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন ঢামেক হাসপাতালের নতুন ভবনের ওয়ার্ড মাস্টার আবুল হোসেন।

তিনি জানান, ওই নারীকে ভর্তি করা হয়েছে। তার শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। এখন তার এক্সরেসহ কিছু টেস্ট করা হচ্ছে। পাশাপাশি করোনা টেস্টও করা হবে।

তিনি আর জানান, নতুন ভবনের সামনে এক মাকে ফেলে দিয়ে গেছে সন্তান। এমন একটি খবর আসে ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ বক্সের।
খবর পাওয়া মাত্র বক্সের সহকারি ইনচার্জ এএসআই আব্দুল খান ও নায়েক মিজানুর রহমান গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন।

আব্দুল খান বলেন, ওই নারীর প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। পরে তাকে ওয়ার্ড বয়দের সহযোগিতায় করোনা ইউনিট নতুন ভবনের ৭০২ নম্বর ওয়ার্ডের ১০ নম্বর বেডে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি বলেন, ওই নারীর নাম মনোয়ারা বেগম ওরফে মনিরা (৫০)। তার স্বামীর নাম শাহজাহান মিয়া। বাড়ি ময়মনসিংহ হালুয়াঘাট উপজেলার জয়রামপুর গ্রামে। পরিবারের সঙ্গে মিরপুর কমার্স কলেজের পাশে একটি বস্তির সালামের বাড়িতে তারা ভাড়া থাকে।

ওই নারীর বরাত দিয়ে আব্দুল খান বলেন, কয়েকদিন হলো ওই নারীর শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। এজন্য তাদের বাড়িওয়ালা সালাম নারীর সন্তানদের বাড়ি থেকে অন্যত্র নিয়ে যেতে বলে। এরপর ছেলে মোজাম্মেল সরকার ও বাড়িওয়ালা সালাম তাকে দু’দিন আগে ঢাকা মেডিকেলের নতুন ভবনের সামনে ফেলে রেখে যায়। এরপর আর কোনো খোঁজ নেননি। তবে সে তিনদিন ধরে এখানে ঝড়-বৃষ্টিতে ভিজে পড়ে আছে বলে জানিয়েছে আশপাশের অ্যাম্বুলেন্স চালকরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Md. Harun Al-Rashid
৬ জুন ২০২০, শনিবার, ১১:১৯

মাগো, এই পোলাড আইসা এখন যদি তোমার কলিজাটা চায় তাও তুমি দিয়া দিবা। এএসআই আবদুল খান ও নায়েক মিজান ভাইকে সালাম।

অন্যান্য খবর