× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১০ আগস্ট ২০২০, সোমবার

মন্দিরের পর মসজিদেও স্যানিটাইজার ব্যবহারে আপত্তি

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:০৪

কিছুদিন আগেই ভারতের বিভিন্ন মন্দিরের পুরোহিতরা স্যানিটাইজার ব্যবহারের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। বলা হয়েছিল স্যানিটাইজারে অ্যালকোহল থাকে। তাই এর ব্যবহার অপবিত্র করবে মন্দিরকে। এবার মসজিদেও স্যানিটাইজার ব্যবহারে আপত্তি জানিয়েছে উত্তরপ্রদেশের একটি দরগার প্রধান। বেরেলির দরগা আলা হজরতের সুন্নি নশতার ফারুকি ফতোয়া জারি করেছেন, স্যানিটাইজার ব্যবহারের ক্ষেত্রে। তিনি জানিয়েছেন, কোনওভাবেই মসজিদ চত্বরে বা তার বাইরে অ্যালকোহল ভিত্তিক স্যানিটাইজার ব্যবহার করা যাবে না। যদি কোনও মুসলিম তা ব্যবহার করেন, তবে মসজিদে ঢুকতে পারবেন না তিনি। তাঁর আরও দাবি, মসজিদে আল্লাহর বাস, মসজিদ তাঁর ঘর।
আল্লাহর ঘরকে অপবিত্র করা যাবে না। নামাজও সেই অপবিত্র স্থানে পড়া যাবে না। যদি কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে অ্যালকোহল বেসড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে, তবে সেটা পাপ হবে। ফারুকি প্রতিটি মসজিদের ইমামদের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, তারা নিজেদের অনুগামীদের যেন এই কাজ থেকে বিরত রাখেন। প্রত্যেককে যেন বোঝানো হয়। কোনও মুসলিমই যেন অ্যালকোহল ভিত্তিক স্যানিটাইজার ব্যবহার না করেন। তার বদলে সাবান, হ্যান্ডওয়াশ, ডিটারজেন্ট দিয়ে হাত পরিষ্কার রাখার পক্ষেই সওয়াল করেছেন তিনি। কয়েকদিন আগে মথুরার কিছু মন্দিরের হিন্দু পুরোহিতরাও এই একই কারণে অ্যালকোহল ভিত্তিক স্যানিটাইজার দিয়ে মন্দির চত্বরে হাত ধোওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মালেক
১২ জুন ২০২০, শুক্রবার, ২:১৯

মসজিদ আল্লার ঘড়, এটা ঠিক আছে, তবে মসজিদে আল্লাহ বাস করেন (ইমাম সাহেব ঠিক কি বলেছেন, তা পরিস্কার নয়) এই কথাটা ঠিক নয়। আল্লাহ সব জায়গায় থাকেন না, বিশ্ব সৃষ্টির পরে তিনি আরশে সমাসীন হয়েছেন (কোরান)। তার ক্ষমতা বিসসের সব জায়গায়, মানুষের শাহ রগের চেয়েও তিনি নিকটে আছেন। আল্লাহ সব জায়গায় থাকেন এই তত্ত্ব অংশিবাদি ধারনার মুল মন্ত্র, এবং হিন্দুরা এই বিশ্বাস নিয়ে বড় বড় গাছ পাথর কে পুজা করে, আর মনসুর হিল্লায আনাল হক (আমিই খোদা) বলেন, কারন তিনি বিশ্বাস করতেন যে সব কিছুর ভিতর আল্লাহ বিরাজমান। কিন্তু কোরান এই তত্তের বিরদ্ধে ঘোষণা করেছে যে বর্তমানে আরশে সমাসীন।

Citizen21
১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১২:৫২

এলকোহল দিয়ে হাত ধোয়া সমস্যা না, সমস্যা হল এই মাদক ব্যবহারে অভ্যস্ত হয়ে গেলে - হাত থেকে মুখে, মুখ থেকে পেটে যেতে সমস্যা থাকবে না! "হুজুরদের" ভয় ওখানে! !!

আবুল কাসেম
১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:১৬

ওষুধে যখন অ্যালকোহল থাকে অসুখ বিসুখ হলে ওষুধ খান কেনো? মূর্খদের সাথে বিতর্ক করা উচিত হবে না। অ্যালকোহল পান করা হারাম। ওষুধের উপকরণ হিসেবে ব্যবহার হারাম নয়। ফতোয়ার ক্ষেত্রে সাবধানী হওয়া উচিত।

Suman Khan
১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:১৫

What an ignorance by these mullahs,,,it is made consumption of alcohol haram by Allah 'taAla,, but using it as germ killers is never told anywhere in Islam

কাজী
১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:১১

ফারুকী সাহেব ফতোয়া জারি করার ক্ষেত্রে আরেকটু পড়াশুনা করলে দো জাহানের কামিয়াবি হাসিল হত! প্রথমত, কঠিন পদ্ধতি পরিত্যাগ করা মুসলিমের কর্তব্য...যখন সহজ কোন পদ্ধতি বর্তমান। এক্ষেত্রে উনি যেন মেহেরবানি করে সুরা বাকারাহ এর ১৪৩ নাম্বার আয়াত http://corpus.quran.com/translation.jsp?chapter=2&verse=143 এবং এই হাদিস টি পড়ে নেন। http://ihadis.com/76 ফতোয়া দেয়ার আগে কেন ফতোয়া বাস্তবায়িত হতে হবে সেই ব্যাখ্যাও সুস্পষ্ট করা উচিত। অ্যালকোহল হারাম সেইটা খাওয়ার জন্য...কেননা তা মস্তিষ্ক-বিকৃতি ঘটায়। অ্যালকোহল দিয়ে হাত ধুইলেও কি মস্তিষ্কবিকৃতি ঘটে কিনা, তা যদি উনি একটু বিস্তারিত জানাতেন... সবচেয়ে বড় কথা...এই ধরণের একটা ফতোয়া দেয়ার আগে উনার উচিত ছিলো একজন কেমিস্ট আর একজন ডাক্তারের সাথে কথা বলে নেয়া। মন চাইলো আর যা না তাই বলে দিলাম...এরকম হুজুর সমাজে যখন দাড়ায়ে যাবে, তখন আমাদের কিয়ামতের অপেক্ষা করা উচিত। http://ihadis.com/107

Samsulislam
১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৮:৫৪

মুর্খেরে করিবে বশ মতে মত দিয়া।

অন্যান্য খবর