× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১২ আগস্ট ২০২০, বুধবার
বিশ্বকাপ ফাইনালে ভারতের কাছে হার

পুলিশি তদন্ত শুরু করেছে শ্রীলঙ্কা, ডি সিলভাকে জিজ্ঞাসাবাদ

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১ জুলাই ২০২০, বুধবার, ৮:০৪

শ্রীলঙ্কার ১৯৯৬ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক অর্জুনা রানাতুঙ্গা বলেছিলেন, তার সন্দেহ হয় ২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনালে ভারতের কাছে ইচ্ছে করে হেরেছিল লঙ্কানরা । এবার যখন শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রী ফিক্সিংয়ের অভিযোগ তুললেন, তখন নড়েচড়েই বসেছে সবাই। ৯ বছর আগে মুম্বইয়ে অনুষ্ঠিত ওই ফাইনালে সত্যিই কোনো দুর্নীতি হয়েছিল কি না, তা বের করতে ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন শুরু করেছে শ্রীলঙ্কা।
শ্রীলঙ্কার ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি কে.ডি.এস রুয়ানচন্দ্র সংবাদসংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘পুলিশের একটি স্পেশাল তদন্ত ইউনিট এখন দেখছে ব্যাপারটা,  যে ইউনিট ক্রীড়া বিষয়ক অপরাধগুলো তদন্ত করে থাকে।’ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিররের প্রতিবেদনে জানানো হয়, তদন্তকারীরা ২০১১ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা দলের প্রধান নির্বাচকের দায়িত্বে থাকা অরবিন্দ ডি সিলভাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। বিশেষ পুলিশ সুপার ডব্লিউ এজেএইচ ফনসেকা বলেছেন, ১৯৯৬ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক অরবিন্দ ডি সিলভাকে তলব করে শ্রীলঙ্কান এই ক্রিকেট কিংবদন্তির বক্তব্য রেকর্ড করেছে দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের বিশেষ তদন্ত বিভাগ।
২০১১ বিশ্বকাপের আগে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন অরবিন্দ ডি সিলভা। তবে বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতের কাছে শ্রীলঙ্কার হারের পর প্রধান নির্বাচকের পদ থেকে সরে দাঁড়ান তিনি।
চলতি মাসের শুরুতে শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রী মহিন্দানন্দ আলুতগামাগে দাবি করেন, ২০১১ বিশ্বকাপ ট্রফিটা ভারতের কাছে বিক্রি করেছিল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল। তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় এখন আমি এ ব্যাপারে কথা বলতে পারি। খেলোয়াড়দের একটা অংশ জড়িত ছিল।’ আলুতগামাগে বলেন, ‘আজ আমি আপনাদের বলছি আমরা ২০১১ বিশ্বকাপ বিক্রি করে দিয়েছিলাম, আমি যখন ক্রীড়ামন্ত্রী ছিলাম তখনও আমি এটি বলেছি।’ আলুতগামাগে বলেন, ‘আমি চাই আমার সন্দেহের বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হোক। আমি ক্রীড়ামন্ত্রী থাকা অবস্থায় ২০১১ সালের ৩০শে অক্টোবর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) কাছে যে অভিযোগপত্র দিয়েছিলাম সেটির একটি কপি আমি পুলিশকে দিয়েছি।’
তবে তখনকার অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা এবং ফাইনালে সেঞ্চুরি হাঁকানো মাহেলা জয়াবর্ধনে প্রতিবাদ জানান।
সাঙ্গাকারা বলেন, আলুতগামাগের উচিত আইসিসির কাছে ফিক্সিংয়ের প্রমাণ দেয়া। আর মাহেলা এটিকে দেখছেন দেশের নির্বাচন সামনে রেখে মন্ত্রীর রাজনৈতিক চাল হিসেবে।
ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ওই ফাইনালে আগে ব্যাট করে মাহেলার সেঞ্চুরিতে লঙ্কানদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৭৪/৬। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলীয় ৩১ রানের মধ্যে শীর্ষ দুই ব্যাটসম্যান বীরেন্দর সেওয়াগ ও শচীন টেন্ডুলকারের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ভারত। কিন্তু এরপর বাজে ফিল্ডিং ও অনিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ হারায় শ্রীলঙ্কা। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে হেরে রানার্সআপ হয় সাঙ্গাকারার দল।
শ্রীলঙ্কায় ম্যাচ ফিক্সিং এখন ফৌজদারি অপরাধ। অভিযোগ প্রমাণিত হলে বড় শাস্তি। সর্বোচ্চ ১০০ মিলিয়ন রুপি জরিমানা ও ১০ বছরের জেল হতে পারে অপরাধীর।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর