× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১২ আগস্ট ২০২০, বুধবার

এবার সাঙ্গাকারাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকলো পুলিশ

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১ জুলাই ২০২০, বুধবার, ৪:২০

 

ক্রমেই জটিল আকার নিচ্ছে  ২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনাল ফিক্সিং ইস্যু। অরবিন্দ ডি সিলভার পর এবার কুমার সাঙ্গাকারাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছে শ্রীলঙ্কার স্পেশাল ডিভিশনের পুলিশ।

২০১১ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক ছিলেন সাঙ্গাকারা। তার নেতৃত্বে টুর্নামেন্টে রানার্সআপ হয় লঙ্কানরা। ফাইনালে শ্রীলঙ্কা ৬ উইকেটে পরাজিত হয়েছিল ভারতের কাছে। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রী মহিনানন্দ আলুতগামাগে দাবি তুলেন- ফাইনাল ম্যাচটি পাতানো ছিল। শ্রীলঙ্কা ট্রফিটা ভারতের কাছে বিক্রি করেছে। এ নিয়েই এখন তদন্ত করছে দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন ডিভিশন। এসএসপি ডব্লিউ.এ.জে.এইচ ফনসেকা সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিররকে জানিয়েছেন, আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) সকাল ৯টায় সাঙ্গাকারার জবানবন্দি নেবেন তারা।

সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রীর মন্তব্যের পর সমালোচনা করেছিলেন সাঙ্গাকারা। সাবেক এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান আলুতগামাগেকে প্রমাণ দিতে বলেন।

আলুতগামাগের মন্তব্যের পর ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন শুরু হয় শ্রীলঙ্কায়। ২৪শে জুন তৎকালীন ক্রীড়ামন্ত্রীর স্টেটমেন্ট নেয় তদন্তে থাকা পুলিশের স্পেশাল ইউনিট। এরপর মঙ্গলবার সাবেক তারকা অরবিন্দ ডি সিলভা এবং ওপেনার উপুল থারাঙ্গার জবানবন্দি রেকর্ড করে তারা।  অরবিন্দ ২০১১ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা দলের নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। মঙ্গলবার তাকে প্রায় ৬ ঘণ্টা ধরে জেরা করে পুলিশ। আর ২০১১ বিশ্বকাপে লঙ্কান দলের ওপেনার থারাঙ্গাকে প্রায় দুই ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ৩৫ বছর বয়সী থারাঙ্গা এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘চলমান তদন্ত নিয়ে ওরা আমাকে কিছু প্রশ্ন করেছিল। আমি আমার বিবৃতি দিয়েছি।’

৯ বছর আগে মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ফাইনালে ২০ বলে ২ রান করেছিলেন থারাঙ্গা। তবে মাহেলা জয়াবর্ধনের সেঞ্চুরিতে লঙ্কানদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৭৪/৬। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলীয় ৩১ রানের মধ্যে শীর্ষ দুই ব্যাটসম্যান বীরেন্দর সেওয়াগ ও শচীন টেন্ডুলকারের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ভারত। কিন্তু এরপর বাজে ফিল্ডিং ও অনিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ হারায় শ্রীলঙ্কা। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে হেরে রানার্সআপ হয় সাঙ্গাকারার দল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর