× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার

শামীম ওসমানের অনুরোধে প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতালে রোগী ভর্তি শুরু

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ১ জুলাই ২০২০, বুধবার, ৬:১৪

অবশেষে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ভর্তি শুরু করেছে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিংক রোডের সাইনবোর্ড এলাকায় অবস্থিত ২৫০ শয্যার প্রো-অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। এরআগে স্থানীয় সাংসদ শামীম ওসমানের অনুরোধে তারা রোগী ভর্তি করানোর ঘোষণা দেন। অনুষাঙ্গিক সব প্রক্রিয়া শেষে সোমবার থেকে ওই হাসপাতালে রোগী ভর্তি শুরু হয়েছে।
গত ১৯ জুন প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতাল করোনা আক্রান্ত রোগীদের ভর্তি না নিলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে আলটিমেটাম দেন সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। ১৯ জুন বিকেলে নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জের প্রো-অ্যাকটিভ ও আল বারাকা হাসপাতালে আইসিইউ বেড রয়েছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সব হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের সেবা দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে। প্রো-অ্যাকটিভ এটাকে বাণিজ্য হিসেবে নিয়েছে। যদি আগামী সপ্তাহের মধ্যে তারা করোনা রোগীদের সেবা দেয়া না শুরু করে তাহলে আমি সাংবাদিকদের নিয়ে সেখানে যাবো এবং যা যা করা দরকার করবো।
এ পরিস্থিতি উত্তরণের জন্য গত ২২ জুন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে শামীম ওসমান ও জেলা প্রশাসনের সঙ্গে এক বৈঠকে উপস্থিত হন হাসপাতাল দু’টির কর্মকর্তারা।
সেখানে দুই হাসপাতালের প্রতিনিধিরা শামীম ওসমানের অনুরোধে সাড়া দিয়ে রোগী ভর্তি করানোর ঘোষণা দেন। পরে বৈঠক থেকে বেরিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নিচে শামীম ওসমান প্রেস ব্রিফিংয়ে ঘোষনা দেন প্রো-অ্যাকটিভ ও আল বারাকা নামে বেসরকারী দুটি প্রাইভেট হাসপাতাল করোনায় আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিবে। ওই প্রেসব্রিফিংয়ে প্রো-অ্যাকটিভ ও আল বারাকার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
প্রো অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের হেড অব অপারেশন ডা. রাশিদুল হুদা বলেন, সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষে সোমবার থেকে আমরা করোনা রোগী ভর্তি শুরু করেছি। রোববার আমাদের ২ জন ডাক্তার, ২ জন নার্স ও ৩ জন আয়া/ওয়ার্ডবয়কে নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন ট্রেনিং দিয়েছেন। এবং আমাদের বলেছেন, নন আইসিইউ বেড যতটুকু সেইটুকু সাপোর্ট দিয়ে যান। পরেরটা আমরা পরে দেখবো। তাই আমরা অক্সিজেন লেভেল পর্যন্ত করোনা রোগীর চিকিৎসা সেবাটা শুরু করেছি। কারণ আইসিইউর জন্য যে ভেন্টিলেটর প্রয়োজন তা আমাদের নেই। তবে সরকার থেকে যদি ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা করা হয় সেক্ষেত্রে আমরা আইসিইউ সেবাটা দিতে পারবো।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কোন রোগীর আইসিইউ প্রয়োজন হলে সেই রোগীর ট্রিটমেন্ট কোথায় কিভাবে হবে সেটা দেখবে জেলা সিভিল সার্জন অফিসের প্রতিনিধি বা ফোকাল পারর্সন যিনি থাকবেন।
রাশিদুল হুদা আরো বলেন, আমাদের আইসিইউতে দুইটা ভেন্টিলেটর আছে। যেখানে নন কোভিট পেসেন্টরা থাকে। তাছাড়া কোভিড-১৯ এবং ননকোভিড-১৯ পেসেন্ট তো আর এক সঙ্গে রাখা যাবে না। বর্তমানে অক্সিজেন সুবিধাসহ ১১ বেডের আইসোলেশন ইউনিট চালু করা হয়েছে। এতে করে আইসিইউর আগ মূহূর্ত পর্যন্ত সেবা দেওয়া যাবে।’
নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, গত রোববার প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতালে করোনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এবং সোমবার থেকে তারা রোগী ভর্তি শুরু করেছে। আজ (বুধবার) সেখানে ২ জন রোগী ভর্তি আছে।  
এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেন, প্রো-অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমার অনুরোধে রাজি হয়েছিল তারা করোনা রোগীর চিকিৎসা তাদের হাসপাতালে দিবে। কথামতো তারা রোগী ভর্তি শুরু করেছে। এবং প্রতিদিন কি পরিমান রোগী ভর্তি হচ্ছে, তাদের চিকিৎসা কিভাবে হচ্ছে তারা এ তথ্য সিভিল সার্জন, ফোকাল পারসনসহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর কাছে পাঠাচ্ছে। করোনাপরিস্থিতির এই দু:সময়ে নারায়ণগঞ্জবাসীর চিকিৎসায় পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে আমি ধন্যবাদ ও কতৃজ্ঞতা জানাচ্ছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর