× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৭ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার

কিশোরীদের নিয়ে আটকে গেছে বিসিবি’র পরিকল্পনা

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৭:৫৬

ছেলেদের ক্রিকেটে তৃণমূল পর্যায়ে বাংলদেশ সমৃদ্ধ। বয়সভিত্তিক দলগুলোর কারণেই পাইপলাইনে পর্যাপ্ত ক্রিকেটার পাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। মেয়েদের ক্রিকেট এই জায়গায় অনেক পিছিয়ে। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দল গঠিত হয় মাত্রই গত বছরে। দলের কতটুকু অগ্রগতি হয়েছে, তা জানা যাবে ২০২১ সালে বাংলাদেশের মাটিতে অনুষ্ঠেয় মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের প্রথম আসরে। বিশ্বকাপ সামনে রেখেই এখন পরিকল্পনা আগাচ্ছে বিসিবি। তবে বিসিবির নারী বিভাগের কোচ রুহুল আমিন ক্রিকেট পোর্টাল ক্রিকফ্রেঞ্জিকে বলেছেন, করোনায় আটকে গেছে অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দল নিয়ে বোর্ডের সব পরিকল্পনা।
গত বছর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দল গঠনের ঘোষণা দেন। এরপর দেশের প্রত্যেক জেলা হতে বাছাই করা হয়েছে কিশোরী ক্রিকেটারদের।
রুহুল আমিন বলেন, ‘প্রত্যেক জেলা থেকে গড়ে ৫-৭ জন ক্রিকেটার আসে। তাদের নিয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে তিন দিনের ক্যাম্প করেছিলাম আমরা। সেরাদের নিয়ে বাছাই করা হয় ডিভিশনাল টিম। ৮টি বিভাগীয় দল নিয়ে ২০১৯ সালের নভেম্বরে ময়মনসিংহে জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৯ লীগ ছিল আমাদের। প্রত্যেকের ৭টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ ছিল। সেই টুর্নামেন্ট থেকে আমরা ৪০ জন প্রতিভাবান কিশোরী বাছাই করি এবং তাদেরকে এক মাসের ক্যাম্পের (ফেব্রুয়ারি-মার্চ) জন্য কক্সবাজারে নিয়ে আসি।’
সেখান থেকে আরো কয়েকজনকে বাছাই করেন রুহুল আমিনরা। সবশেষ ২৪ জনের একটি দল দাঁড় করান তারা। কোচ রুহুল আমিন বলেন, ‘ক্যাম্প শেষে আমরা ২৪ জনের একটি তালিকা তৈরি করে বিসিবিকে পাঠাই। কিন্তু করোনার কারণে আমরা তাদের নিয়ে এগোতে পারিনি। ক্যাম্প শুরুর কয়েকদিনের মাথায় থেমে যেতে হয়।’
বিসিবির নারী বিভাগের ইনচার্জ তৌহিদ মাহমুদ আশাবাদী, ক্রিকেটীয় কর্মকাণ্ড শুরু হলে তারা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মতো একটি দল তৈরি করতে পারবেন। তিনি বলেন, ‘বাকি সবকিছুর মতো অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দলের ক্রিকেটীয় কার্যক্রমও এখন স্থগিত রয়েছে। সাধারণ ক্রিকেট কার্যক্রম শুরু হলে তারা তাদের কাজে ফিরবে।’


আগামী বছর কক্সবাজারে হওয়ার কথা প্রথম নারী অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। খেলা হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। দিনক্ষণ চূড়ান্ত হয়নি এখনো। কিন্তু বিশ্বে করোনার যে পরিস্থিতি তাতে এ টুর্নামেন্টও ভেস্তে যেতে পারে। তবে এ নিয়ে আশাবাদী বিকেএসপির ছাত্রী সানজিদা আক্তার। বলেন, ‘আনুষ্ঠানিকভাবে যেহেতু এখনো বিশ্বকাপ স্থগিতের ঘোষণা আসেনি। আমি আশাবাদী। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপকে আমি জাতীয় দলে প্রবেশের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করতে চাই।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর