× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৭ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার

‘টপস্পিন’ রপ্ত করছেন তাইজুল

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৭:৫৮

টপস্পিন রপ্ত করতে নিজের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে কাজ করছেন   তাইজুল ইসলাম।  এর আগে বাংলাদেশ দলের স্পিন বোলিং পরামর্শক ড্যানিয়েল ভেট্টরি বলেছিলেন, বিদেশের মাটিতে সাফল্য পেতে বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের ভাণ্ডারে  ‘টপস্পিন’ অস্ত্রটা দরকার। আর তাইজুল জানালেন, গুরু ড্যানিয়েল ভেট্টরির পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করছেন তিনি। কিউই লিজেন্ডারি বাঁহাতি স্পিনার ভেট্টরির পরামর্শ অনুযায়ী নিজের বোলিং অ্যাকশনে কিছুটা পরিবর্তন এনে অনুশীলন করছেন যাতে বিদেশের মাটিতে সফল হতে পারেন। ‘টেস্ট বোলার’ হিসেবে পরিচিতি পেলেও তিন ফরম্যাটেই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা তাইজুল ইসলাম নিউজ পোর্টাল ক্রিকবাজকে  বলেন, ‘এটা খুবই টেকনিক্যাল বিষয়। এবং এটা আমার পক্ষে বলে বোঝানো কঠিন। আমাদের দেশের টার্নিং উইকেটে বোলিংয়ে সাইডস্পিন সুবিধা পেয়ে থাকেন স্পিনাররা। কারণ এটা হয় সোজা যায়, নয়তো পিচে পড়ে কিছুটা বাঁক খায়। কিন্তু যখন আপনি ফ্ল্যাট অথবা ঘাসের উইকেটে খেলবেন তখন স্পিনারদের জন্য টপস্পিন করতে পারাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
কারণ, এতে ক্রিজে একজন ব্যাটসম্যানের জন্য বল বোঝা কঠিন হয় যে কোনটা উইকেটের ভেতরে আসবে আর কোনটা বাইরে যাবে। এবং এটা (টপস্পিন) উইকেট থেকে বাউন্স ও ফ্লাইট আদায় করে থাকে।
২০১৯ সালের জুলাইয়ে বাংলাদেশ দলের স্পিন বোলিং পরামর্শকের দায়িত্ব নেন নিউজিল্যান্ডের ক্যাপ মাথায় ১১৩ টেস্ট ও ২৯৫ ওয়ানডে  খেলা বাঁহাতি স্পিনার ড্যানিয়েল ভেট্টরি। আর বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ২৮ বছর বয়সী তারকা তাইজুল ইসলাম বলেন, ‘ভেট্টরির সঙ্গে কথা হয়েছে আমার এবং তিনি আমাকে বলেছেন দেশের মাটিতে খেলার জন্য আমি পারফেক্ট। কিন্তু বিদেশের মাটিতে সাফল্য পেতে হলে আমাকে আরো কিছু জিনিস রপ্ত করতে হবে কারণ, সেখানে উইকেট ফ্ল্যাট হয়, নয়তো ঘাসের। এ জন্য আমি আমার বোলিংয়ে কিছু পরিবর্তন এনেছি এবং চেষ্টা করে যাচ্ছি। পরিবর্তনটা হয়তো খুব সামান্য, কিছুটা অ্যাকশনে কিছুটা বল মাটিতে পিচ খাওয়ানোর ক্ষেত্রে।
২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে কিংসটাউনে টেস্ট অভিষেক তাইজুল ইসলামের। একই বছর ঢাকায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হয় তার ওয়ানডে অভিষেক। আর একদিনের ক্রিকেটে অভিষেকেই হইচই ফেলেন এ বাঁহাতি স্পিনার। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওই ম্যাচে বল হাতে হ্যাটট্রিক নৈপুণ্য দেখান তাইজুল। ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে ওটা ছিল অভিষিক্ত কোনো বোলারের প্রথম হ্যাটট্রিক।  সেদিন স্পেল শেষে তার বোলিং ফিগার দাঁড়ায় ৪/১১তে।
বাংলাদেশের ক্যাপ মাথায় ২৯টি টেস্ট খেলেছেন তাইজুল ইসলাম। খেলেছেন ৯টি ওয়ানডে ও দুই টি-টোয়েন্টি। দেশের মাটিতে খেলা ১৯ টেস্টে তাইজুল ইসলামের শিকার ৯৩ উইকেট। তবে দেশের বাইরে তার পরিসংখ্যানটা উজ্জ্বল নয়। বিদেশের মাটিতে ১০ টেস্টে তাইজুলের সাকুল্যে শিকার ২১ উইকেট।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর