× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১২ আগস্ট ২০২০, বুধবার

কোটালীপাড়ায় সৎ মাকে পিটিয়ে হত্যা

বাংলারজমিন

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি | ৬ জুলাই ২০২০, সোমবার, ৭:২৮

 জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় এক বৃদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে সতিনের ছেলেরা। নিহত কুলসুম বেগম (৬৫) রাজিন্দারপাড় গ্রামের সবর আলী সিকদারের দ্বিতীয় স্ত্রী। অফিযোগ অস্বীকার করেছে নিহত কুলসুমের সতিনের ছেলেরা। গত শনিবার কোটালীপাড়া উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের রাজিন্দারপাড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। নিহত কুলসুমের ছেলে স্বপন সিকদার বাদী হয়ে ৪ নারী ও ৩ জন পুরুষকে আসামি করে কোটালীপাড়া থানায় একটি হত্য্ ামামলা দায়ের করেছে। মামলা নং ২। পুলিশ কোটালীপাড়া উপজেলার বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে ৪ নারীকে গ্রেপ্তার করেছে। নিহতের ছেলে স্বপন সিকদারের থানায় দায়েরকৃত মামলার বরাত দিয়ে কোটালীপাড়া থানার ওসি শেখ লুৎফার রহমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, জমি-জমা নিয়ে সতিনের ছেলেদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিলো নিহত কুলসুমের।
কুলসুম বেগমকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য গত শনিবার আনুমানিক সকাল পৌনে ১০টার দিকে আলাউদ্দিন সিকদার, স্ত্রী রোকেয়া বেগম, মেয়ে লিমা সিকদার ও ভাই রিপন সিকদার কলসুম বেগমকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় কুলসুম বেগমের নিজের ২ ছেলে ও ছেলের বউয়েরা তাকে উদ্ধারের জন্য এগিয়ে আসলে তাদেরকেও মারপিট করে। খবর পেয়ে নিহতের স্কুল শিক্ষক ভাই বোন কুলসুমকে উদ্ধার করে প্রথমে কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পরে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল ও সবশেষ খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাত ৮টার দিকে সে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। সোমবার দুপুর ২টার দিকে ঘটনার বিস্তারিত জানতে গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মাদ ছানোয়ার হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নিহত কুলসুমের সন্তান স্বপন সিকদারের থানায় দায়েরকৃত হত্যা মামলার ৪ আসামিকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। মামলা তদন্তের স্বার্থে তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য আপাতত বলা যাচ্ছে না। তবে, নিরীহ কোনো মানুষকে আমরা হয়রানি করবো না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর