× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, শুক্রবার

এক রাতের বৃষ্টিতে থৈ থৈ ঢাকা

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২১ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার, ৯:০৭

রাতে টানা কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতে অথৈ অবস্থা তৈরি হয় রাজধানীতে। রোববার রাতের বৃষ্টির পানি সরতে গতকাল দিনভর অপেক্ষা করতে হয়েছে অনেক এলাকার বাসিন্দাদের। বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা তৈরি হওয়ায় দুর্ভোগে পড়েন অনেক মানুষ। সকালে কর্মস্থলে যেতে ঘর থেকে বের হয়ে বিপদে পড়েন অনেকে। রোববার মধ্যরাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টিতে ঢাকার প্রধান প্রধান সড়কসহ বেশকিছু এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। রাজধানীর কাওরান বাজার, গ্রিনরোড, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, শ্যামলী, রামপুরা, বাড্ডা, শান্তিনগর, মালিবাগ, ধানমন্ডি ২৭, সায়েদাবাদ এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। দুপুর পর্যন্ত এসব স্থানে পানি জমে থাকায় দুর্ভোগে পড়েন নগরবাসী। জলাবদ্ধতার কারণে তীব্র যানজট সৃষ্টি হতে দেখা গেছে।
সরজমিনে দেখা গেছে, সড়কে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় অনেক গাড়ির ইঞ্জিন নষ্ট হয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন চালকরা। এতে চরম ভোগান্তির শিকার হয়েছেন অনেকে। অনেককেই দেখা গেছে হাঁটু পানিতে নেমে বৃষ্টির পানিতে ভিজে অফিস কিংবা কর্মস্থলে যেতে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সকাল থেকেই ভারী বৃষ্টির কারণে রাজধানীর ধানমন্ডি ২৭, সংসদ ভবন এলাকা, লালমাটিয়া, সেনপাড়া, তেজকুনিপাড়া, তেজতুরি বাজার, মিরপুর ১০ থেকে ১৪ নম্বর, তেজগাঁও, সাতরাস্তা মোড়, কাওরান বাজার এলাকা, রাজারবাগ পুলিশ লাইনের উত্তর গেট, নয়াপল্টন, পুরান ঢাকার বঙ্গবাজার এলাকা, সিদ্দিক বাজার মোড়, নাজিরা বাজার, নাজিম উদ্দিন রোড, গ্রিন রোড, মোহাম্মদপুর, ফার্মগেট, শুক্রাবাদ, রামপুরা, মালিবাগ ও খিলক্ষেতে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। এতে বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন পথচারী ও ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা। অফিসগামী মানুষ নির্ধারিত স্থানে যাওয়ার জন্য রিকশা ঠিক করতে গেলে কয়েকগুণ ভাড়া চাইছেন চালকরা। ভাড়া নিয়ে রিকশা চালকদের সঙ্গে যাত্রীদের কিছুটা বাকবিত-ার ঘটনাও ঘটেছে। সাতরাস্তা এলাকার এক বাসিন্দা বলেন, নাবিস্কো থেকে সাতরাস্তা পর্যন্ত পুরো এলাকায় পানি জমে রয়েছে। মানুষ চলাচল করতে পারছে না। পানির কারণে আধাঘন্টা পর্যন্ত সড়কের পাশে দাঁড়িয়েছিলাম। বাসে উঠতে পারিনি। অফিসে আসতে অনেক লেট হয়েছে। প্রতিবছর এমন করেই কাটাতে হয়। জলাবদ্ধতা থেকে আমাদের মুক্তি নেই। সিটি করপোরেশন যেন এসব দেখছেই না। পথচারীরা জানায়, জলাবদ্ধতার কারণে বিপাকে পড়েছেন কাজে বের হওয়া মানুষজন। রাস্তাঘাটে পানি জমায় বাসা থেকে বের হতে বেগ পেতে হচ্ছে। রাস্তায় বেরিয়েও ঠিকভাবে মিলছে না যানবাহন। এদিকে কাওরান বাজার ও ধানমন্ডি ২৭ সহ বেশ কিছু এলাকায় যানবাহনের সাইলেন্সার পাইপে পানি ঢুকে বিকল হয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর