× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, শুক্রবার

বন্যাকবলিত ৫০০ পরিবারে খাদ্য সহায়তা দিলেন নারী জনপ্রতিনিধি

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, কিশোরগঞ্জ থেকে | ৭ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার, ৮:৩১

করোনাভাইরাসের থাবা, ব্রহ্মপুত্রের ভাঙন ও সর্বশেষ বন্যার আগ্রাসনে একেবারে বিপর্যস্ত অবস্থা কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার সাহেবেরচরে। এই তিন দুর্যোগে গ্রামজুড়ে লণ্ডভণ্ড পরিস্থিতি। পেশা, ভিটেবাড়ি ও ফসল হারিয়ে অনেকে আজ সর্বস্বান্ত। ঈদের দিনটিও ভাল কাটেনি তাঁদের। গ্রামবাসীর এই দুর্দিনে তাদের পাশে সহায় হয়ে দাঁড়িয়েছেন এক নারী। নিজের জমানো টাকায় খাদ্যসামগ্রী কিনে বিলি করেছেন অভাবী পরিবারগুলোর মাঝে। হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রৌশনারা রুনা নৌকা দিয়ে পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে গরিব অসহায় মানুষের হাতে এসব উপহার তুলে দেন। একজন নারী জনপ্রতিনিধির এমন ব্যক্তিগত উদ্যোগ প্রশংসা পাচ্ছে এলাকায়।
বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত সাহেবেরচর ও চরবিশ্বনাথপুর গ্রামে অন্তত ৫০০ পরিবারের মাঝে পরিবার পিছু পাঁচ কেজি আটা, এক কেজি চিনিসহ বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন তিনি। সাহেবেরচর গ্রামের মিনারা খাতুনেরও বয়স হয়ে গেছে। অন্ধ স্বামী অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী। ব্রহ্মপুত্রে তিনবার বসতঘর বিলীন হয়েছে। এখন অন্যের জায়গায় একটা ছাপড়া তুলে বাস করেন। মাথা গোঁজার একটু ঠাঁই হলেও সংসার যে চলে না। বন্যার পানি ঢুকেছে স্বপন মিয়ার ঘরে। মাচা বেঁধে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে থাকছেন। কষ্টেসৃষ্টে গত একটি সপ্তাহ পার করছেন। এখন ঘরে খাবার নেই। সালমা, রিনা আক্তার, ছালেহা খাতুন, আলাউদ্দিনসহ যারা ত্রাণ নিতে লাইনে দাঁড়িয়েছেন, সবার জীবনের গল্প প্রায় এক রকমই।  উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রৌশনারা রুনা বলেন, হোসেনপুরে বিশেষ করে সাহেবেরচর গ্রামটি ভাঙনসহ নানাভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। এখানকার মানুষ খুব কষ্টে রয়েছে। আমার সাধ্যমতো আমি তাঁদের সহযোগিতা করছি। ভবিষ্যতেও তা চলমান থাকবে। জনপ্রতিনিধি হিসেবে লোকজনকে সহযোগিতা করা আমার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। খাদ্যসামগ্রী বিতরণকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ নেতা নূরুন্নবী ফকির বাদল, সিদলা ইউপি সদস্য কফিল উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আহাদুল ইসলাম, আবদুল কাদির শেখ, মো. মাসুদ মিয়া, যুবলীগ নেতা ইকবাল হোসেন ফকির, আব্দুল ওয়াদুদ, লিমন প্রমুখ।

স্থানীয়রা জানান, করোনাভাইরাসের থাবা, ব্রহ্মপুত্রের ভাঙন ও সর্বশেষ বন্যায় বিপর্যস্ত হলেও সাহেবেরচর এলাকার মানুষ কোন জনপ্রতিনিধিকে তাদের পাশে পায়নি। এ রকম পরিস্থিতিতে অসহায় এসব মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রৌশনারা রুনা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর