× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার

খুন হওয়ার আশঙ্কায় ফেনীর ২ জনপ্রতিনিধির থানায় অভিযোগ

বাংলারজমিন

ফেনী প্রতিনিধি | ৭ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার, ১০:৩৬

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও ফেনী-২ আসনের সাবেক সাংসদ জয়নাল হাজারীর নির্দেশে খুন হওয়ার আশঙ্কায় তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ফেনীর দুই জনপ্রতিনিধি থানায় লিখিত অভিযোগ (জিডি) দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিভিন্ন সময়ে ছাগলনাইয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল এবং সোনাগাজী পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম খোকন স্ব-স্ব থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল ও রফিকুল ইসলাম খোকনের দাখিল করা লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১ আগস্ট ঈদের দিন শনিবার বিকেলে তাঁদের জড়িয়ে জয়নাল হাজারী ফেনীর মাস্টারপাড়ার তাঁর বাসভবনের সামনে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য দেন। মুহূর্তে সেই বক্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে এই বক্তব্য নিয়ে দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষের সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল ও রফিকুল ইসলাম খোকন দু’জনই জনপ্রতিনিধি হওয়ায় এলাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড দেখার জন্য বিভিন্ন স্থানে তাঁদের যেতে হয়। জয়নাল হাজারীর নির্দেশে সন্ত্রাসীরা তাঁদের যেকোনো সময় খুন বা জখম করতে পারে, এমন আশঙ্কা থেকে তাঁরা জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে জয়নাল হাজারীর বিরুদ্ধে প্রশাসনকে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করেছেন।

ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল বলেন, জয়নাল হাজারীর শ্বাসন আমলে তাঁর অন্যায়-অবিচারকে সমর্থন না করায় ছাত্ররাজনীতি করার সময় তিনি ‘আমাকে দুই দফায় মৃত্যুদন্ড দিয়েছিলেন’। সেই সময়ে তাঁর অপরাজনীতির শিকার হয়ে অনেক মায়ের বুক খালি হয়েছে। বর্তমানে শান্তির জনপদ ফেনীকে ফের অশান্ত করতে জয়নাল হাজারী পাঁয়তারা করছেন।

সোনাগাজী পৌরসভা মেয়র রফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, জয়নাল হাজারীর গত শনিবারের বক্তব্যে তাঁকে লোকজন দিয়ে কেটে টুকরা টুকরা করার হুমকি দেন। এতে তিনি চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।
বিষয়টি নিয়ে নেতা-কর্মীদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাসহ ক্ষোভ বিরাজ করছে। থানায় জিডি করার পাশাপাশি বিষয়টি তিনি দলীয় ঊর্ধ্বতন নেতাদেরও জানিয়েছেন।

ছাগলনাইয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ জানান, জিডির বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সোনাগাজী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবদুর রহিম সরকার জানান, জিডির বিষয়টি তদন্ত করতে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার হুসেনকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, প্রায় এক দশক পর গত ১ আগস্ট ফেনীর মাস্টারপাড়ায় নিজ বাড়িতে আসেন সাবেক সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নাল হাজারী। এসময় তিনি বাড়ির সামনে সমাবেশে বক্তব্য দেন। ফেনীর ছাগলনাইয়া ও সোনাগাজীর দুই জনপ্রতিনিধিকে নিয়ে হুমকি দেওয়া সেই বক্তব্যের ভিডিও মুহূর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়। ঘটনার ৬দিন পর দুই জনপ্রতিনিধি স্ব-স্ব থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরী করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর