× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, শনিবার

সাবমেরিন ক্যাবলে জটিলতা ইন্টারনেটে ধীরগতি

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১০ আগস্ট ২০২০, সোমবার, ৯:২২

দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের (সি-মি-উই-৫) পাওয়ার ক্যাবল কাটা পড়ায় দেশে ইন্টারনেটে ধীরগতি বিরাজ করছে। পটুয়াখালীতে সাবমেরিন ক্যাবল-২-এর ল্যান্ডিং স্টেশনের প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে গতকাল সকালে পাওয়ার ক্যাবল কাটা পড়ে। তারপর থেকে দেশে ইন্টারনেটে গতি কম পাওয়া যায়। গতকাল সারাদিনই এ অবস্থা বিরাজ করে। দেশের ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন আইএসপিএবি’র সভাপতি আমিনুল হাকিম মানবজমিনকে বলেন, পাওয়ার ক্যাবল কাটা পড়ায় এ সংকট তৈরি হয়েছে। কারিগরি ত্রুটি হওয়ায় এটা মেরামত করতে সময় লাগবে বলে আমাদের জানানো হয়েছে। আজকের মধ্যে (সোমবার) হয়তো সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তিনি বলেন, পাওয়ার ক্যাবল কাটা পড়ায় রিপিটারে বিদ্যুৎ যাচ্ছে না।
এজন্য ব্যান্ডউইথ পেতে সমস্যা হচ্ছে। সাবমেরিন ক্যাবল ১ ও আইটিসি দিয়ে আমরা কাজ চালিয়ে নিচ্ছি। তিনি জানান, ইন্টারনেটে ৪০-৫০ শতাংশ গতি কমে গেছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, ল্যান্ডিং স্টেশন এলাকায় খারাপ আবহাওয়া থাকায় পাওয়ার ক্যাবল মেরামতে সময় লাগছে। ইন্টারনেট সেবাদাতাদের তথ্য অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে প্রায় এক হাজার ৭০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ ব্যবহার হয়ে থাকে। যার মধ্যে প্রায় অর্ধেক সরবরাহ করে থাকে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল। সাবমেরিন ক্যাবল ছাড়াও বাংলাদেশ এখন ছয়টি বিকল্প মাধ্যমে (আইটিসি বা ইন্টারন্যাশনাল টেরিস্ট্রিয়াল ক্যাবল) ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের সঙ্গে যুক্ত। বাংলাদেশ প্রথম সাবমেরিন ক্যাবল ‘সি-মি-উই-৪’ এ যুক্ত হয় ২০০৫ সালে। আর ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের মাধ্যমে সি-মি-উই-৫ সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হয়। দ্বিতীয় এই স্টেশনের মাধ্যমে সাউথইস্ট এশিয়া-মিডলইস্ট-ওয়েস্টার্ন ইউরোপ আন্তর্জাতিক কনসোর্টিয়ামের সাবমেরিন ক্যাবল থেকে সেকেন্ডে ১ হাজার ৫০০ গিগাবিট (জিবি) গতির ইন্টারনেট পায় বাংলাদেশ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর