× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার

মহেশখালী আদালতে ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে করা মামলা খারিজ

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার থেকে | ১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:১২

মহেশখালীতে কথিত বন্দুকযুদ্ধে আবদুস সাত্তার নিহতের ঘটনায় থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাটি খারিজ করে দিয়েছে আদালত।

একই সঙ্গে ওই ঘটনায় চার বছর আগে পুলিশের পক্ষে অজ্ঞাতনামা আসামী দেখিয়ে দায়েরকৃত মামলাটি তদন্তের দায়িত্বভার দেয়া হয়েছে সিআইডিকে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে মহেশখালীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আব্বাস উদ্দীন এ আদেশ দেন।

বাদি পক্ষে আইনজীবী শহিদুল ইসলাম জানান, কথিত বন্দুকযুদ্ধে আবদুস সাত্তার হত্যার ঘটনায় ওসি প্রদীপ ও পুলিশের ৫ সদস্যসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন স্ত্রী হামিদা আক্তার (৪০)। বুধবার মামলাটি শুনানি হয়।

বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক আব্বাস উদ্দিন ফৌজদারি দরখাস্তটি আমলে নিতে অপারগতা জানিয়ে বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে উচ্চ আদালতে দায়ের করা রিট রয়েছে।

তিনি জানান, চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলাটি এএসপি মর্যাদার নিচে নয় এমন একজন সিআইডি কর্মকর্তাকে তদন্তের দায়িত্বে নির্দেশ দেন বিচারক।

হামিদা আক্তারের দায়েরকৃত ফৌজদারি দরখাস্তে ফেরদৌস বাহিনীর প্রধান ফেরদৌস, থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, এসআই হারুনুর রশীদ, এসআই ইমাম হোসেন, এএসআই মনিরুল ইসলাম, এএসআই শাহেদুল ইসলাম ও এএসআই আজিম উদ্দিনকে অভিযুক্ত করেন।

ভিকটিম আবদুস সাত্তার হোয়ানক পূর্ব মাঝেরপাড়ার মৃত মৃত নুরুচ্ছফার পুত্র।

মামলার বাদী হামিদা আক্তার জানান, গত ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী সকাল ৭টার দিকে ফেরদৌস বাহিনীর সহায়তায় হোয়ানকের লম্বাশিয়া এলাকায় তার স্বামী আবদুস সাত্তারকে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় থানায় মামলা নেয়নি। অবশেষে উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হন। রিট পিটিশন নং-৭৭৯৩/১৭ মূলে ‘ট্রিট ফর এফায়ার’ হিসেবে গন্য করতে আদেশ দেন বিচারক। সেই আদেশের আলোকে তিনি একই বছরের ১৭ জুলাই কক্সবাজারের পুলিশ সুপারকে লিখিত দরখাস্ত দেন। কিন্তু পুলিশ আবেদন আমলে নেয় নি বলে জানান হামিদা আক্তার।

পুলিশ দাবি করেছে, নিহত আব্দুস সাত্তার অস্ত্র ব্যবসায়ী ছিলেন। এ ঘটনায় সেই সময় থানায় মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
azam faruque
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:২৩

mr. mustafa ahsan if i got chance then will see what to do aginest police curraption , justice, and politician i will give them final lesson it will write on histroy.

Zaman
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৬:৪৯

দাদারা আছে না ? প্রদিপের কিছুই হবে না। আপনারা লিখে রাখতে পারেন।

Raju
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৬:০০

প্রদীপ বিরুদ্বে করা সব মামলাই আস্তে আস্তে অন্দ্বকারেই হারিয়ে যাবে।

Nilima
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:৩০

Course of Allah, all Angels and all creations of God will be upon them..

Mohammed Islam
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৫:০০

This is our judiciary

Mustafa Ahsan
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৩:৪৬

বিচারকদের বিচার কে করবে??

ফারুক হোসেন
১৩ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:২২

এরই নাম বি চা র ! ! !

অন্যান্য খবর